বৃহস্পতিবার, ৩০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিদায়ী বছরে সড়কে ৭৯০২ প্রাণ ঝরেছে

বিদায়ী বছরে সড়কে ৭৯০২ প্রাণ ঝরেছে

২০২৩ সালে ৬ হাজার ২৬১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ৯০২ জন নিহত এবং ১০ হাজার ৩৭২ জন আহত হয়েছেন।

রবিবার (১৪ জানুয়ারি) সকালে সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী এসব তথ্য জানান।

সংগঠনটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত সড়ক, রেল ও নৌ-পথে দুর্ঘটনার সংবাদ মনিটরিং করে বার্ষিক পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। সড়কে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটেছে মোটরসাইকেলে। ২ হাজার ৩১টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ২ হাজার ১৫২ এবং আহত ১ হাজার ৩৩৯ জন, যা মোট দুর্ঘটনার ৩২ দশমিক ৪৩, নিহতের ২৭ দশমিক ২৩ এবং আহতের ১২ দশমিক ৯০ শতাংশ। একই সময় রেলপথে ৫২০টি দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ৫১২ এবং আহত ৪৭৫ জন। নৌ পথে ১৪৮টি দুর্ঘটনায় ৯১ জন নিহত, ১৫২ জন আহত হয়েছেন। নিখোঁজ রয়েছে ১০৯ জন। সড়ক, রেল ও নৌ-পথে মোট ৬ হাজার ৯২৯টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে ৮ হাজার ৫০৫ নিহত এবং ১০ হাজার ৯৯৯ জন আহত হয়েছেন।

প্রতিবেদনে দেখা গেছে, বিগত ৯ বছরে নিবন্ধিত যানবাহনের পাশাপাশি ছোট গাড়ি বিশেষ করে মোটরসাইকেল ও ইজিবাইকের সংখ্যা চার থেকে পাঁচ গুণ বেড়েছে। পাশাপাশি ইজিবাইক, মোটরসাইকেল ও ত্রি-হুইলার সরকারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়কে অবাধে চলাচল করছে। এসব কারণে সড়কে দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি বাড়ছে।

সড়কে দুর্ঘটনায় আক্রান্ত ১ হাজার ৯৫০ জন চালক, ৯৬৮ পথচারী, ৪৮৫ পরিবহন শ্রমিক, ৬৯৭ শিক্ষার্থী, ৯৭ শিক্ষক, ১৫৪ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, ৯৮৫ নারী, ৬১২ শিশু, ৩০ সাংবাদিক, ৩২ চিকিৎসক, ১৬ মুক্তিযোদ্ধা, ৮ আইনজীবী, ১০ প্রকৌশলী এবং ১১১ জন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীর পরিচয় মিলেছে। সড়কে নিহতদের মধ্যে রয়েছেন, ৭৩ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য (১৬ সেনা সদস্য, ৪০ পুলিশ সদস্য, একজন র‌্যাব সদস্য, সাত জন বিজিবি সদস্য, তিন জন নৌ-বাহিনীর সদস্য, তিন আনসার সদস্য, দুই ফায়ার সার্ভিস সদস্য, একজন জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা (এনএসআই) সদস্য); ১৩ মুক্তিযোদ্ধা; ১৫ সাংবাদিক; ৬৪৭ নারী; ৪৬৬ শিশু; ৪১৬ শিক্ষার্থী; ৮১ শিক্ষক, ১ হাজার ৫২৬ চালক, ২৬০ পরিবহন শ্রমিক, আট প্রকৌশলী, সাত আইনজীবী, ৭৭ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী এবং ২২ জন চিকিৎসক।

আরও পড়ুনঃ  ভাসানচরে পৌঁছল রোহিঙ্গারা

দুর্ঘটনার শিকার ৮ হাজার ৫৫০টি যানবাহনের পরিচয় মিলেছে। এর মধ্যে ১৬ দশমিক ১৫ শতাংশ বাস, ২৪ দশমিক ৮৪ শতাংশ ট্রাক-পিকাপ-কাভার্ডভ্যান ও লরি, ৫ দশমিক ৯১ শতাংশ কার-জিপ-মাইক্রোবাস, ৫ দশমিক ৩৯ শতাংশ সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ২৬ দশমিক ২ শতাংশ মোটরসাইকেল, ১৪ দশমিক ৪৭ শতাংশ ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ইজিবাইক, ৭ দশমিক ১৯ শতাংশ নছিমন-করিমন-মাহিন্দ্রা-ট্রাক্টর-লেগুনা সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে। ২০২২ সালের তুলনায় ২০২৩ সালে ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান-ইজিবাইক দুর্ঘটনা ১১ দশমিক ২২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। বাস দুর্ঘটনা বেড়েছে ২ দশমিক ৮২ শতাংশ। এছাড়া ২০২২ সালের তুলনায় ২০২৩ সালে ২৪ দশমিক ৩৬ শতাংশ কার-জিপ-মাইক্রোবাস, ২৩ দশমিক ২২ শতাংশ নসিমন-মাহিন্দ্রা-লেগুনা, ২৩ দশমিক ৩ শতাংশ সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ১৯ দশমিক ৯ শতাংশ মোটরসাইকেল, ৯ দশমিক ৮৪ শতাংশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান-লরি দুর্ঘটনা কমেছে।

মোট দুর্ঘটনার ৫২ দশমিক ৮৩ শতাংশ পথচারীকে গাড়ি চাপা, ২০ দশমিক ৫ শতাংশ মুখোমুখি সংঘর্ষ, ১৪ দশমিক ২৯ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে, ১১ দশমিক ৪ শতাংশ বিভিন্ন কারণে, শূন্য দশমিক ২৭ শতাংশ যানবাহনের চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে এবং শূন্য দশমিক ৬৮ শতাংশ ট্রেন-যানবাহন সংঘর্ষের কারণে ঘটেছে। পরিসংখ্যানের তুলনামূলক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ২০২২-এর তুলনায় ২০২৩ সালে গাড়ি চাপা ৬ দশমিক ৭৩ শতাংশ, মুখোমুখি সংঘর্ষ ১১ দশমিক ৯৯ শতাংশ, যানবাহনের চাকায় ওড়না পেঁচানো ৩৭ দশমিক ৩ শতাংশ, ট্রেন-যানবাহন সংঘর্ষ ৩৫ দশমিক ২ শতাংশ, নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়া ১৬ দশমিক ৪ শতাংশ কমেছে। দুর্ঘটনার ধরন বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ২০২৩ সালে মোট সংঘটিত দুর্ঘটনার ৩৪ দশমিক ৮৬ শতাংশ জাতীয় মহাসড়কে, ২৮ দশমিক ৪১ শতাংশ আঞ্চলিক মহাসড়কে, ২৮ দশমিক ৫ শতাংশ ফিডার রোডে সংঘটিত হয়েছে। এছাড়াও দুর্ঘটনার ৬ দশমিক ৩২ শতাংশ ঢাকা মহানগরীতে, ১ দশমিক ১১ শতাংশ চট্টগ্রাম মহানগরীতে, শূন্য দশমিক ৬৮ শতাংশ রেলক্রসিংয়ে ঘটেছে।

আরও পড়ুনঃ  গাজীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মা-ছেলেসহ তিনজনের মৃত্যু

উল্লেখ্য, ২০২২-এর তুলনায় ২০২৩ সালে ছোট যানবাহনের সংখ্যা হঠাৎ কয়েকগুণ বেড়ে যাওয়া এবং এসব যানবাহন অবাধে চলাচলের কারণে ফিডার রোডে ৫৫ দশমিক ১৯ শতাংশ, জাতীয় মহাসড়কে ১৪ দশমিক ৩৩ শতাংশ, রেলক্রসিংয়ে শূন্য দশমিক ১৬ শতাংশ সড়ক দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে এবার আঞ্চলিক মহাসড়কে ৪৯ দশমিক ৩৩ শতাংশ দুর্ঘটনা কমেছে। ২০২৩ সালে ঢাকা বিভাগে ১ হাজার ৭৩৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১ হাজার ৭১২ জন নিহত, ২৩৮১ জন আহত হয়েছেন। চট্টগ্রাম বিভাগে ১ হাজার ২৩৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১ হাজার ২০৫ জন নিহত, ২ হাজার ২৯৪ জন আহত হয়েছেন। খুলনা বিভাগে ৭৬৫টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭৬৪ জন নিহত, ১ হাজার ৭৮ জন আহত হয়েছেন। বরিশাল বিভাগে ৩৮১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭৯ জন নিহত, ৯৯২ জন আহত হয়েছেন। ময়মনসিংহ বিভাগে ৪১৮টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৬৪ নিহত, ৬৬৫ জন আহত হয়েছেন। সিলেট বিভাগে ৩৭১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪০৩ নিহত, ৯২৬ জন আহত হয়েছেন। রংপুর বিভাগে ৫৬৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৬২৬ নিহত, ৮৬৮ জন আহত হয়েছেন। রাজশাহী বিভাগে ৭৮৮টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭৯৩ নিহত, ১১৬৮ জন আহত হয়েছেন। বিদায়ী বছরে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটেছে ১৭ জানুয়ারি। এইদিনে ৩৫টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২০ জন নিহত ও ৩১ জন আহত হয়েছে। ২৬ মার্চ সবচেয়ে কম দুর্ঘটনা সংগঠিত হয়েছে। এইদিনে ৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় আট জন নিহত এবং ১৪ জন আহত হয়েছেন। দুর্ঘটনায় সবচেয়ে বেশি নিহত হয়েছে ৭ জুলাই। এইদিনে ৩০টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪১ জন নিহত এবং ৯৮ জন আহত হয়েছেন। সবচেয়ে বেশি আহত হয়েছে ৪ মার্চ। এইদিনে ২৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২৯ জন নিহত এবং ১৪৮ জন আহত হয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন