রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
দর্শনা চেকপোস্ট--

ভিসার দাবিতে গণজমায়েত

ভিসার দাবিতে গণজমায়েত

চুয়াডাঙ্গার দর্শনা-গেদে স্থলবন্দর চেকপোস্ট দিয়ে সড়ক পথে বাংলাদেশিদের সব ধরণের ভিসা প্রদানের দাবিতে গণজমায়েত অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে উপজেলার দর্শনা আন্তর্জাতিক রেল স্টেশনের সামনে এ গণজমায়েত অনুষ্ঠিত হয়। গণজমায়েতটি আয়োজন করে দর্শনা নাগরিক কমিটি। এতে অংশ নেন জেলার নানা শ্রেণীপেশার মানুষ।   

গণজমায়েতে বক্তারা বলেন, করোনার সময়ে বাংলাদেশের সকল স্থলবন্দর ও চেকপোস্ট সাময়িক বন্ধ ঘোষণা হয়। করোনা পরিস্থিত স্বাভাবিক হয়েছে, দেশের সকল বন্দর চালু হয়েছে। কিন্তু অজানা কারণে আজও দর্শনা পথ চালু হয়নি। এতে দুর্ভোগে পড়েছে রাজধানী ঢাকাসহ অন্তত ২৫ জেলার মানুষ। তাই লাখ লাখ মানুষের এই দুর্ভোগ ভোগান্তি লাঘবে দর্শনা-গেদে চেকপোস্ট চালু করতে হবে। যদি দর্শনা-গেদে চেকপোস্ট যদি না চালু করা হয় দর্শনা আন্তর্জাতিক রেল স্টেশন অবরোধ করা হবে।

বক্তারা আরও বলেন, এ চেকপোস্ট দিয়ে ভারতীয় পাসপোর্টধারী যাত্রীরা অবাদে চলাচল করছে কিন্তু বাংলাদেশীরা ভিসা পাচ্ছেন না। এটা হতে পারে না। এই চেকপোস্ট দিয়ে ভারতীওরা যাওয়া আসা করতে পারলে আমারাও এই চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে যেতে পারবো। যদি অচিরেই এই চেকপোস্ট চালু না করা হয় তাহলে ভারতীয় পাসপোর্টধারী যাত্রীদের বাংলাদেশে প্রবেশ আটকে দেয়া হবে।

গণজমায়েতে অংশনেয়া চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আজাদুল ইসলাম আজাদ বলেন, দীর্ঘ সময় চালু থাকা এই বন্দর হুট করেই বন্ধ হয়ে যাওয়াটা দুক্ষজনক। আমাদের বন্ধুরা যাওয়া-আসা করতে পারবে আর আমরা যাতে পারবো না এটা যেন আমাদের মুক্তিযুদ্ধের অর্জনকেই হারাতে বসেছি। আমি অনুরোধ জানাবো সরকারের প্রতি আমরা যেন এই চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে যাতায়াত করতে পারি সেটা দ্রুত নিশ্চিত করতে।

আরও পড়ুনঃ  ধামরাইয়ে বন্যার্তদের বরাদ্দকৃত ত্রাণসহ গ্রেফতার ইউপি চেয়ারম্যান

বাংলাদেশ জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা আনোয়ারুল ইসলাম বাবু বলেন, আমি ভারত সরকারের যে প্রতিনিধি আছেন বাংলাদেশে তার কাছে অনুরোধ জানায় আপনারা দয়া করে এই চেকপোস্ট চালু করে আমাদের ২৫ জেলার মানুষের দূর্ভোগ লাঘব করবেন। একই সাথে আমাদের দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয়কে অনুরোধ জানাবো অতিসত্তর ভারতের সঙ্গে কথা বলে এই চেকপোস্ট চালু করেন। অন্যথায় পরিস্থিতি অবনতি হতে পারে যে কোনো সময়। 

গণজমায়েতে আরও উপস্থিত ছিলেন, দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের প্রশাসক মাহফুজুর রহমার মনজু, দর্শনা পুর্নাঙ্গ স্থলবন্দর বাস্তবায়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক রেজাউল করিম লিটন, ব্যাবসায়ী আতিয়ার রহমান হাবু, জীবননগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু আব্দুল লতিফ অমল, দামুড়হুদা  দর্শনা পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকও দামুড়হুদা উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আলী মনসুর বাবু, দর্শনা পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ রুস্তম আলী,বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কিশোর কুমার কুন্ডু,দর্শনা নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক ও দর্শনা পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক আরিফ, জীবননগর প্রেস ক্লাবের সভাপতি এম.আর বাবু, দর্শনা প্রেস ক্লাবে সভাপতি আওয়াল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক এস এম ওসমান আলী প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের কারণে গত ২০২০ সালের ২৬ মার্চ দর্শনা আন্তর্জাতিক রেল বন্দরের মাধ্যমে ভারতীয় মালামাল আমদানি ও স্থলপথে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে ট্যুরিস্টসহ অন্যান্য ভিসার পাসপোর্ট যাত্রী যাতায়াত সম্পূর্ণভাবে স্থগিত করা হয়। সরকারি নির্দেশনার কারণে করোনার সময়ে ভারত ভ্রমণে থাকা বাংলাদেশি নাগরিক আটকে পড়ে। পরবর্তীতে দুই দেশের সরকারি সিদ্ধান্তে ২০২১ সালের ১৭ মে থেকে ভারতে আটকা পড়া বাংলাদেশিদের দর্শনা আন্তর্জাতিক স্থলপথের মাধ্যমে দেশে ফেরত আনার একটি নির্দেশনা জারি করা হয়। এরমধ্যে ভারতে আটকেপড়া বাংলাদেশি নাগরিকদের দর্শনা আন্তর্জাতিক সীমান্তে সড়ক পথে দফায় দফায় নিজ দেশে ফেরার সুযোগ পান।

আরও পড়ুনঃ  আদিবাসীর লাশ উদ্ধার

পরবর্তীতে করোনা কিছুটা কম হলেও ভারতীয় হাই কমিশনের গাফিলতির কারণে বন্ধ থাকে দর্শনা আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট দিয়ে সড়ক পথে যাত্রী যাতায়াত। তবে, একই সীমান্ত দিয়ে রেল পথে মৈত্রী ট্রেনে টুরিস্ট ভিসার যাত্রীরা ভারত-বাংলাদেশ যাতায়াতের সুযোগ পেলেও দীর্ঘ আড়াই বছর ধরে বন্ধ রয়েছে দর্শনা আন্তর্জাতিক চেকপোস্টের সড়ক পথ।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন