রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
এইচএসসিতে অংশগ্রহণ ১২০৩৪০৭

অবশেষে পরীক্ষা

অবশেষে পরীক্ষা
  • প্রশ্নফাঁসের চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী
  • শুরুর এক ঘণ্টা পর স্থগিত কারিগরি পরীক্ষা

সারা দেশব্যাপী শুরু হয়েছে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা (এইচএসসি)। গতকাল রবিবার ১১ টি শিক্ষা বোর্ডের আওতায় দেশের বিভিন্ন কলেজে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কেন্দ্র পরিদর্শনকালে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, প্রশ্নফাঁস বন্ধ করতে আমরা অভিনব কৌশল গ্রহণ ও কঠোর মনিটরিং করছি। এরপরও কেউ যদি গুজব ছড়ানো বা প্রশ্নফাঁসের চেষ্টা করে, তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্ত্রী বলেন, গত এসএসসি পরীক্ষায় আমরা দেখেছিলাম, একটি অভিনব কায়দায় প্রশ্ন ফাঁসের চেষ্টা করা হয়েছিল। এবার ফাঁস করলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ বিষয়ে আমরা সার্বক্ষণিক নজরদারি করছি।

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, এবার আমরা চেষ্টা করেছিলাম জুলাই-আগস্টে পরীক্ষা নিয়ে আসতে। কিন্তু দেশের একটি অঞ্চলে বন্যার কারণে পরীক্ষা নিতে দেরি হয়ে গেল। এর পরের বছর আরও এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করবো।

ভবিষ্যতে যদি কোনো অঞ্চলে প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়, তাহলে সেই বোর্ডের পরীক্ষা সাময়িক বন্ধ রেখে অন্য বোর্ডের পরীক্ষা নিতে হবে বলেও মন্তব্য করেন দীপু মনি। পরীক্ষা কেন্দ্রে আসা অভিভাবকদের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, সন্তানকে পৌঁছে দিয়ে সঙ্গে সঙ্গে যেন তারা কেন্দ্র ত্যাগ করেন। তাহলে কোনো পরীক্ষার্থীর কেন্দ্রে আসতে সমস্যা হবে না।

এদিকে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীন পরিচালিত এইচএসসি’র (বিএমটি) বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। গতকাল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান।

আরও পড়ুনঃ  এইচএসসি পরীক্ষা: প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২০ হাজার পরীক্ষার্থী

গতকাল দুপুর ২টায় যথারীতি পরীক্ষা শুরু হয়। ৪টায় পরীক্ষা শেষ হওয়ার কথা ছিল। এর মধ্যে একঘণ্টা পর বিকাল ৩টার দিকে পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। পরীক্ষার সময়সূচি পরে জানিয়ে দেওয়া হবে বলে কারিগরি বোর্ডের এক নোটিশে জানানো হয়েছে।

কী কারণে পরীক্ষা স্থগিত হলো তা বলা হয়নি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এইচএসসি (বিএমটি) একাদশ শ্রেণির বাংলা প্রথম পত্রে নতুন সিলেবাসের পরীক্ষার্থীদের পুরাতন সিলেবাসের প্রশ্নপত্র দেওয়া হয়। আর পুরাতন সিলেবাসের পরীক্ষার্থীদের নতুন সিলেবাসের প্রশ্নপত্র দেওয়া হয়। তবে কারিগরি শিক্ষা বোর্ড থেকে জানানো হয়েছে, ‘অনিবার্য কারণবশত’ পরীক্ষা স্থগিত করা হলো।

কয়েক দফায় পেছানোর পর অবশেষে পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এবার মোট ১২ লাখ ৩ হাজার ৪০৭ পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে এই পরীক্ষায়। এরমধ্যে ছাত্র ছয় লাখ ২২ হাজার ৭৯৬ জন এবং ছাত্রী পাঁচ লাখ ৮০ হাজার ৬১১ জন। এই বোর্ড পরীক্ষায় মোট দুই হাজার ৬৪৯টি কেন্দ্রে ৯ হাজার ১৮১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নিচ্ছে।

দেশের ১১টি শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে মোট পরীক্ষার্থী ৯ লাখ ৮৫ হাজার ৭১৩ জন। আর কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি (বিএম/বিএমটি), এইচএসসি (ভোকেশনাল), ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে এক লাখ ২২ হাজার ৯৩১ জন। এরমধ্যে ছাত্র ৮৮ হাজার ৯১৮ জন এবং ছাত্রী ৩৪ হাজার ১৩ জন। কারিগরি বোর্ডের আওতায় মোট এক হাজার ৮৫৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৬৭৩টি কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে পরীক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুনঃ  কোন পথে শাবির আন্দোলন

আনন্দবাজার/শহক

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন