বৃহস্পতিবার, ৩০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জাকের-মাহমুদউল্লাহর তাণ্ডবের পরও ‌‘তীরে এসে তরী ডুবল’ বাংলাদেশের

জাকের-মাহমুদউল্লাহর তাণ্ডবের পরও ‌‘তীরে এসে তরী ডুবল’ বাংলাদেশের

২০৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে টপ অর্ডার ব্যাটাররা যখন ব্যর্থ ঠিক সে সময় জাকের-মাহমুদউল্লাহর তাণ্ডবে অবিশ্বাস্য প্রত্যাবর্তনে বাংলাদেশ। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ঝোড়ো ফিফটি আর তারপর জাতীয় দলে ‘অভিষিক্ত’ জাকের আলি অনিকের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে অসাধ্য সাধনের খুব কাছে চলে এসেছিল স্বাগতকিরা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর হলো না। তীরে এসে তরী ডুবল বাংলাদেশের। বালাদেশও হেরে যায় ৩ রানে।

শেষ ওভারে টাইগারদের দরকার ছিল ১২ রান। প্রথম বলে রিশাদ হোসেনকে আউট করেন দাসুন শানাকা। পরের বলে ওয়াইড। দ্বিতীয় বলে তাসকিন আহমেদ নেন এক রান। ৪ বলে দরকার ১০। স্ট্রাইকে জাকের আলি। দলকে অবিশ্বাস্যভাবে লড়াইয়ে ফেরানো এই ব্যাটার শেষ পর্যন্ত আর পারলেন না। লংঅফে তুলে দলেন ক্যাচ। ৩৪ বলে ৪ বাউন্ডারি আর ৬ ছক্কায় জাকেরের ৬৮ রানের ইনিংস থামলো। শেষ মুহূর্তে অবশ্য শরিফুল চার মেরে আবারও স্বপ্ন দেখায়। কিন্তু সে স্বপ্ন ভেঙে যায় টাইগারদের।

বাংলাদেশ এ বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায়। প্রথম ওভারে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসকে ক্রস খেলতে চেয়ে উইকেটরক্ষকের ক্যাচ হন লিটন দাস (০)।সৌম্য সরকারও উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসেন। ১১ বলে ১২ করে বিনুরা ফার্নান্ডোর বলে আকাশে বল তুলে দিয়ে সাজঘরে ফেরেন এই বাঁহাতি। বিপিএলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী তাওহিদ হৃদয় শুরু করেছিলেন প্রথম বলেই ছক্কা দিয়ে। তবে ৫ বলে ৮ করেই ফিরতে হয় তাকে। ম্যাথিউজের বলে ডাউন দ্য উইকেটে খেলতে গেলে ব্যাটে বল আলতো ছোঁয়া লেগে চটলে যায় উইকেটরক্ষকের গ্লাভসে। রিভিউ নিয়েও রক্ষা হয়নি। ৩০ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর দলের হাল ধরার চেষ্টা করেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত আর অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। রিয়াদ মারমুখী হলেও শান্ত এগোচ্ছিলেন ধীরগতিতে। বল হাতে নিয়েই ২৮ বলে তাদের ৩৮ রানের জুটিটি ভাঙেন মাথিসা পাথিরানা। পাথিরানার গতিতে বেশ সমস্যা হচ্ছিল শান্তর। অবশেষে তিনি ক্যাচই তুলে দেন। বাংলাদেশ অধিনায়কের ব্যাট থেকে ২২ বলে আসে ২০ রান। তবে আরও একবার বুড়ো হাড়ের ভেল্কি দেখিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। লঙ্কান বোলিং আক্রমণের সামনে যেখানে ধুঁকেছেন তরুণ ব্যাটাররা, সেখানে ‘বুড়ো’ মাহমুদউল্লাহ ২৭ বলে ২ চার আর ৪ ছক্কায় হাঁকান হাফসেঞ্চুরি। যদিও হাফসেঞ্চুরির পর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ৩১ বলে ৫৪ করে থিকশানার শিকার হন মাহমুদউল্লাহ। জোরেই হাঁকিয়েছিলেন, বাউন্ডারিতে হয়ে যান ক্যাচ।

জাকের আলি এরপর দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন। চার-ছক্কায় মাঠ মাতিয়ে বাংলাদেশকে লড়াইয়ে টিকিয়ে রাখেন জাতীয় দলে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা এই ব্যাটার। শেষ পর্যন্ত আর পারলেন না। এর আগে শরিফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ আর মোস্তাফিজুর রহমান-তিন পেসারই তাদের ৪ ওভারের কোটায় দিলেন ৪০ রানের ওপর। সবমিলিয়ে তাদের ১২ ওভারে ১২৯ রান তুলে নিলো শ্রীলঙ্কা। ২০ ওভারে লঙ্কানদের পুঁজি দাঁড়ায় ৩ উইকেটে ২০৬ রান।

Print Friendly, PDF & Email
আরও পড়ুনঃ  বদলেছে বঙ্গবন্ধু টি টোয়েন্টি কাপের সূচি

সংবাদটি শেয়ার করুন