রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বান্দরবনের পাহাড়-সমতলে ঝুঁকিপূর্ণ ৭২ বেইলি ব্রিজ

বান্দরবনের পাহাড়-সমতলে ঝুঁকিপূর্ণ ৭২ বেইলি ব্রিজ

বান্দরবান জেলায় ১৯৮০ দশকে অস্থায়ীভাবে নির্মিত গুরুত্বপূর্ণ ৮টি সড়কে ১৫৯ বেইলি ব্রিজ রয়েছে। এর মধ্যে নতুন আরসিসি সেতু নির্মিত হয়েছে ৮৭টি। বাকি ৭২ টি ঝুঁকিপূর্ণ  সেতুগুলোর মধ্যে মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ ৪০টি সেতু

বান্দরবানে সংস্কারের অভাবে মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে বিভিন্ন সড়কের অধিকাংশ বেইলি ব্রিজ। এসব বেইলি ব্রিজ দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করছে হাজার হাজার মানুষ। ঝুঁকিপূর্ণ এসব বেইলি ব্রিজ দ্রুত সংস্কার করা না হলে যে কোনো সময় ঘটতে পারে ভয়াবহ দুর্ঘটনাসহ হতাহতের ঘটনা। 

বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি, থানচি, লামা ও আলীকদমসহ প্রায় প্রতিটি উপজেলায় রয়েছে ছোট বড় অসংখ্য বেইলি ব্রিজ। উঁচু নিচু পাহাড়ি আকাঁবাঁকা পথে ছোট ছোট ঝিরি ও ছড়া থাকায় চলাচলের জন্য কিছুদুর পর পরই রয়েছে কাঠ ও লোহার তৈরি এসব বেইলি ব্রিজ। তবে দীর্ঘদিন ধরে মেরামতের অভাবে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে এ ব্রিজ গুলো। আশির দশকে নির্মিত এসব ব্রিজের কোথাও ধসে পড়ছে, কোথাও বা খুলে গেছে লোহার পাটাতন। আবার কোথাও পঁচে গেছে কাঠ। এঅবস্থায় কোনো কোনো সেতুর নিচে বালুর বস্তা আবার কোনটির উপর লোহার পাটাতন ও কোনটির নিচে গাছের তক্তা দিয়ে আটকানো। ঝুঁকিপূর্ণ এসব সেতুর উপর দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করছে ছোট বড় অসংখ্য যানবাহন। এছাড়াও পর্যটন এলাকা হওয়ায় স্থানীয়দের পণ্যবাহী গাড়ীসহ চলাচল করছে হাজার হাজার পর্যটক। তাই দুর্ঘটনা এড়াতে সেতুগুলো শিগগিরই সংস্কার করা না হলে ভেঙ্গে গিয়ে যে কোনো সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা। ঘটতে পারে মারাত্মক দুর্ঘটনাও। তাই সেতুগুলোকে সংস্কার সহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন চালক, পর্যটক ও দৈনন্দিন যাতায়াতকারী স্থানীয় বাসিন্দারা।

আরও পড়ুনঃ  চেক রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের সৌজন্য সাক্ষাৎ

সড়ক ও জনপথ বিভাগের তথ্যমতে, বান্দরবান জেলায় ১৯৮০ দশকে অস্থায়ীভাবে নির্মিত গুরুত্বপূর্ণ আটটি সড়কে ১৫৯টি বেইলি সেতু রয়েছে। এর মধ্যে নতুন আরসিসি সেতু নির্মিত হয়েছে ৮৭টি। বাকী ৭২টি ঝুঁিকপূর্ণ সেতু গুলোর মধ্যে মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ ৪০টি সেতু।

বান্দরবান সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মোসলে উদ্দীন চৌধুরী জানান, ইতিমধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ সেতুগুলো সংস্কার ও পূণনির্মাণের জন্য নকশা পাশ করা হয়েছে, অর্থ বরাদ্দ পেলেই শিগগির  পূর্ণনির্মাণসহ এসব সেতুগুলোকে সংস্কার করা হবে। 

তবে সেতুগুলো বার বার মেরামত ও দুর্ভোগের কথা স্বীকার করে স্থায়ী সমাধানের জন্য সম্মিলিতভাবে বৃহৎপ্রকল্প গ্রহণের কথা জানালেন বান্দরবান জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরিজী। 

উল্লেখ্য, ২ ফেব্রুয়ারী বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার মুরুংবাজার এলাকায় ব্রেইলী ব্রিজ ভেঙ্গে চাল ভর্তি ট্রাক খাদে পড়ে আব্দুল গফুর (৫০) নামে একজন নিহত হয়। এরপর থেকে বান্দরবান-রুমার সাথে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছে দু’প্রান্তের যাতায়াতকারী লোকজন। 

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন