রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছাত্রলীগের উদ্যোগে কক্সবাজারে ভ্রাম্যমাণ হাসপাতালের যাত্রা শুরু

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে কক্সবাজারে চলছে লকডাউন। এরই প্রেক্ষিতে ঘরবন্দি মানুষের দোরগোড়ায় চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে যাত্রা শরু করল ভ্রাম্যমাণ হাসপাতালের।

প্রথমবারের মত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কক্সবাজার জেলা শাখার উদ্যোগে এই ব্যত্রিক্রম ধর্মী হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু হল কক্সবাজারে।

শনিবার (২মে) সকাল ১০টায় কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুশকুল ইউনিয়নের কুলিয়াপাড়ায় এ ভ্রাম্যমাণ হাসপাতালের উদ্বোধন করা হয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাটির উদ্বোধন করেন।

হাসপাতালের জন্য সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন, কক্সবাজার জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) কক্সবাজার জেলা শাখা, ব্র্যাক ও গিফট কিং হিউম্যানিটি নামের একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা।

ভ্রাম্যমাণ হাসপাতালটিতে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন দুজন চিকিৎসক, চার জন দক্ষ ও প্রশিক্ষিত স্বাস্থ্যকর্মী।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, ‘কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুশকুল ইউনিয়নের কুলালপাড়া থেকে আজ ভ্রাম্যমাণ হাসপাতালের সেবা শুরু হয়েছে। “ডাক্তারের পেছনে রোগী নয়, রোগীর পেছনে ডাক্তার” স্লোগান নিয়ে জেলার দুর্গম ও প্রত্যন্ত এলাকায় গিয়ে মানুষকে গুণগত প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দেবে এই ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাল। হাসপাতালটির কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছেন স্বেচ্ছায় চিকিৎসা সেবা দিতে আগ্রহী একদল চিকিৎসক।’

কক্সবাজার জেলা শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইশতিয়াক আহমেদ জয় বলেন, ‘গিফট কিং হিউম্যানিটি নামের একটি এনজিওর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মেজর (অব:) মোহাম্মদ শায়েস্তা খান ভ্রাম্যমাণ হাসপাতালটি পরিচালনার জন্য অত্যাধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত বড় ভ্যানটি বিনা শর্তে দিয়েছেন। এই ভ্রাম্যমাণ হাসপাতালের মাধ্যমে চিকিৎসকরা নাগরিকদের প্রাথমিক চিকিৎসা সেবাসহ চিকিৎসা পরামর্শ প্রদান করবেন। এছাড়া কারও করোনাভাইরাসের উপসর্গ দেখা গেলে তার নমুনা পরীক্ষার জন্য সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করবে। বিনামূল্যে ওষুধ ও দেওয়া হবে অসহায়, দরিদ্র ও দুস্থ রোগীদের।’

আরও পড়ুনঃ  ছাত্রলীগের ফ্রি-সবজির বাজারে উপচে পড়া ভীড়

ভ্রাম্যমাণ হাসপাতালের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন, জেলা পুলিশ সুপার এ.বি.এম মাসুদ হোসেন, জেলা সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান, কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা হাকিম (এডিএম) মোহাম্মদ শাহাজাহান আলী, জেলা বিএমএ’র সাধারণ সম্পাদক ও জেলা স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডা. মাহবুবর রহমান, খুরুশকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জসীম উদ্দীন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইশতিয়াক আহমেদ জয়সহ কক্সবাজারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ।

আনন্দবাজার/শাহী

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন