বুধবার, ১০ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২৭শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মোবাইল ইন্টারনেটের দাম প্রতি জিবিতে ২০ টাকা বেড়েছে

মোবাইল ইন্টারনেটের দাম প্রতি জিবিতে ২০ টাকা বেড়েছে

দেশের মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানিগুলো চলতি বছরে মোবাইল ইন্টারনেটের দাম প্রতি জিবিতে গড়ে ২০ টাকা বাড়িয়েছে। এরমধ্যে গ্রামীণফোনের ইন্টারনেটের দাম প্রতি জিবিতে বেড়েছে ২১ টাকা। আর রবি ও বাংলালিংকের দাম বেড়েছে জিবিপ্রতি ২০ টাকা।

ফলে এ তিন কোম্পানির সিম দিয়ে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের খরচ ৩০ শতাংশ বেড়ে গেছে। তবে স্থিতিশীল রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল অপারেটর কোম্পানি টেলিটকের ইন্টারনেটের দাম। বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশন এ তথ্য জানিয়েছে। তাদের দেওয়া তথ্য ও মোবাইল অপারেটরগুলোর দাম মিলিয়ে দেখেও দাম বাড়ানোর এ প্রবণতার সত্যতা মিলেছে।

এদিকে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) ২০২৩ সালের ১৫ অক্টোবর থেকে ৩ থেকে ১৫ দিনের ইন্টারনেট প্যাকেজ বন্ধ করে দেয়। একই সঙ্গে ইন্টারনেট প্যাকেজের সংখ্যা ৯৫ থেকে কমিয়ে ৪০টিতে নামিয়ে আনা হয়। এর ফলে ইন্টারনেট ব্যবহারে ১০ থেকে ১৫ টাকা খরচ বাড়ে গ্রাহকদের। তারপর নির্বাচনের আগে ৬৮ টাকায় দেড় জিবি ইন্টারনেট দেয় অপারেটরগুলো। কিন্ত গত ১৫ দিন আগে ৬৮ টাকায় এক জিবি ইন্টারনেট পাচ্ছেন গ্রাহকরা। অন্যদিকে আগে ৪৮ টাকায় এক জিবি ইন্টারনেট পেতেন গ্রাহকরা। এ প্যাকেজের দাম জাতীয় নির্বাচনের আগে বাড়িয়ে ৬৮-৬৯ টাকা করা হয়। গ্রাহকরা এর প্রতিবাদ জানাতে শুরু করেন। তখন তৎকালীন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার কমিশনে অপারেটরদেরকে ডেকে আগের দাম বহাল রাখতে নির্দেশনা দেন।

এরই প্রেক্ষিতে বাধ্য হয়ে অপারেটররা এক জিবি সাতদিন মেয়াদে দাম নির্ধারণ করে ৪৮ টাকা। এতে গ্রাহকদের মধ্যে স্বস্তি ফেরে। কিন্তু নভেম্বরে অপারেটররা দেড় জিবি ইন্টারনেটের প্যাকেজ তৈরি করে ৬৮-৬৯ টাকায়। এর মাধ্যমে তারা গ্রাহকদের অতিরিক্ত সুবিধা দেওয়ার নামে দাম বাড়ায়। নির্বাচনের পর (২০ জানুয়ারির পর থেকে) দেড় জিবির স্থলের ইন্টারনেট প্যাকেজ এক জিবির দাম একই রাখে, অর্থাৎ এক জিবি ইন্টারনেটের দাম ৬৮-৬৯ টাকা নেওয়া হয়। বর্তমানেও ৭ দিন মেয়াদের এক জিবি ইন্টারনেট কিনতে গ্রাহককে গুনতে হচ্ছে ৬৮ থেকে ৬৯ টাকা। ফলে সর্বনিম্ন প্যাকেজের প্রতি জিবির ইন্টারনেটের দামও ২০- ২১ টাকা বেড়েছে।

আরও পড়ুনঃ  ইন্টারনেট সেবাদাতা ১৪ প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল

ইন্টারনেটের দাম বাড়ানোর ফলে গ্রাহকের মধ্যে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। গ্রাহক সংখ্যাও কমে যাচ্ছে উল্লেখ করে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, এর ফলে আগামীতে আরও কমবে কোনো সন্দেহ নেই। কেন অপারেটররা ইন্টারনেটের দাম বাড়ালো, তার সঠিক ব্যাখ্যা কমিশনের নেওয়া উচিত।

বিটিআরসির তথ্য বলছে, গত বছরের ডিসেম্বরে দেশে মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা ছিল ১১ কোটি ৮৪ লাখ। নতুন বছরের জানুয়ারিতে সেই সংখ্যা কমে হয় ১১ কোটি ৬৩ লাখ। এরপর ফেব্রুয়ারি মাস পার হলেও এখনো এ মাসের ইন্টারনেট গ্রাহক সংখ্যা প্রকাশ করেনি বিটিআরসি।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন