রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পতাকা বেচে জীবিকা

পতাকা বেচে জীবিকা

ষাটোর্ধ্ব ফজলুর রহমান। যার দুই হাতে রয়েছে দুটি বাঁশের কাঠি, ওই বাঁশের কাঠির মধ্যে নিচ থেকে উপর পযর্ন্ত সাজানো আছে ছোট বড় লাল-সবুজের জাতীয় পতাকা, সাথে রয়েছে পতাকার আদলে ছোট আকারের ব্যান্ডেস আর স্টিকার। তিনি বাজারের অলিগলি পথে প্রান্তরে হাক ডাক দিয়ে পতাকা বিক্রি করছেন। এমন দৃশ্য চোখে পড়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌর শহরের সড়ক বাজার মোটর স্ট্যান্ড এলাকায় । তিনি বাঁশের কাঠির মধ্যে জাতীয় পতাকা সাজিয়ে পায়ে হেটে হাক ডাক দিয়ে বিক্রি করছেন। পতাকা বিক্রিতেই চলছে তার জীবিকা।

ফজলুর রহমান জানায়,  সে দীর্ঘ ১০ বছর ধরে মহান বিজয় দিবস, একুশে ফেব্রুয়ারি, স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে স্কুল-কলেজ, হাট-বাজারে জাতীয় লাল সবুজের পতাকা ফেরি করে বিক্রি করছেন। অন্য অনেক পেশার সুযোগ থাকলেও দেশ প্রেমের টানেই তার এই পেশাকে বেছে নেওয়া বলে জানান। পতাকা বিক্রেতা ফজলুর রহমানের  বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর উপজেলার বাইশমোজা গ্রামে। তার পরিবারে স্ত্রী, ১ ছেলে ও ৪ মেয়ে  রয়েছে।  অভাবের সংসারে তিনিই একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। পতাকা বিক্রয়ের অর্থ দিয়েই চলে তার সংসার।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে তিনি পতাকা বিক্রি করতে আখাউড়ায় আসেন। এরপর তিনি পায়ে হেটে শহরের অগি গলি, স্কুল কলেজের সামনে পতাকা বিক্রি করছেন।

তিনি বলেন মহান বিজয় দিবসসহ বিভিন্ন দিবস উপলক্ষে দোকানপাট, অনেকেই বাড়ির ছাদ, মোটর সাইকেল, রিকসায় পতাকা উড়াতে চায়।  বিনম্র শ্রদ্ধ ও ভালবাসা জানাতে অনেকেই জাতীয় পতাকা ক্রয় করছেন বলে জানায়। 

আরও পড়ুনঃ  বিত্তবানদের আরও এগিয়ে আসার আহ্বান : শিল্প প্রতিমন্ত্রী

পতাকা বিক্রেতা ফজলুর রহমান বলেন তার কাছে কয়েক ধরনের পতাকা রয়েছে । ছোট পতাকা ২০ টাকা, মাঝারি ধরনের ৫০ টাকা আর বড় সাইজের ৩শ টাকায়  বিক্রি করছেন। এছাড়াও রয়েছে জাতীয় পতাকা সম্বলিত মাথায় বাধার বেল্ড, ছোট হাতের জাতীয় পতাকা, কাগজের পতাকা এবং গালে ও কপালে আটকানো স্টিকার ১০ টাকায় বিক্রি করছেন।

দেশের প্রতি রয়েছে তার অসীম ভালোবাসা। আর সেই ভালোবাসার কারনে পতাকার রং এ রঞ্জিত লাল-সবুজ কেন্দ্রীক নানা প্রকার সামগ্রী বিক্রি করছেন তিনি। প্রতিদিন বিভিন্ন স্থানে ঘুরে দুই হাজার থেকে আড়াই হাজার টাকা  বিক্রি হয় বলে জানান তিনি। এই পতাকা বিক্রিতে চলে তার সংসার বলে জানায়।

পতাকা ক্রয় করতে আসা মো. ইকবাল হোসেন বলেন আগামী শুক্রবার মহান বিজয় দিবস তাই  ছেলের জন্য ছোট আকারের ১টি পতাকা ও একটি স্টিকার কেনা হয়। ছেলে পতাকা ও স্টিকার দেখে খুবই খুশি হবে।

ব্যবসায়ী মো: সুমন মিয়া বলেন, বাজারে নতুন দোকান দেওয়া হয়েছে। সামনে আসছে মহান মহান বিজয় দিবস। বিনম্র শ্রদ্ধা জানাতে একটি পতাকা ক্রয় করেন। ব্যবসায়ী মিলন মিয়া বলেন, বড় আকারের একটি পতাকা বানাতে কাপড়সহ অন্ত:ত ৫শ টাকা খরচ হয়। তাই ওই সাইজের একটি পতাকা ২৫০ টাকায় কেনা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন