রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অর্ধশত বাইকচুরি মামলার আসামি রাজ্জাক কারাগারে

অর্ধশত বাইকচুরি মামলার আসামি রাজ্জাক কারাগারে

ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার কুখ্যাত মোটরসাইকেল চোর আব্দুর রাজ্জাক মোটরসাইকেল চুরি করে পালানোর সময় আবারো পাশ্ববর্তী পীরগঞ্জ উপজেলায় গতকাল মঙ্গলবার ৬ ডিসেম্বর রাতে জনতার হাতে আটক হয়। পরদিন গত বুধবার পুলিশ আদালতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।

অর্ধশত মোটরসাইকেল চুরি মামলার আসামী কুখ্যাত মোটরসাইকেল চোর আব্দুর রাজ্জাক রানীশংকৈল পৌরসভার ভান্ডারা এলাকার বাসিন্দা এবং পৌরসভার সাময়িক বরখাস্ত হওয়া কাউন্সিলর। এর আগেও সে পীরগঞ্জে মোটরসাইকেল চুরি করার সময় জনতার হাতে ধরা পড়ে।

স্থানীয়রা জানায়, ঘটনারদিন উপজেলার বৈরচুনা ইউনিয়নের শিরাইল গ্রামের আজিরউদ্দীনের ছেলে নুরুল ইসলাম তার বাজাজ ১২৫ সিসি ডিসকোভার মোটরসাইকেল নিয়ে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে বৈরচুনা সড়ক পাড়ায় তার শ্বশুর বাড়িতে যায়। মোটরসাইকেলটি বাড়ির সদর দরজার সামনে রেখে ভিতেরে গিয়ে শ্বশুরের সঙ্গে কথা বলে অনুমানিক ২০ মিনিট পর বের হয়ে দেখতে পান, কুখ্যাত মোটরসাইকেল চোর রাজ্জাক ও তার দুই সহযোগী মোটরসাইকেলটি নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। এ সময় অন্য একটি মোটরসাইকেলে করে তাদের ধাওয়া করেতে করতে নুরুল মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিভিন্ন জনকে খবর দেয়। এক পর্যায়ে সন্ধ্যা ৬টার দিকে নওয়াপাড়া মোড় এলাকায় রাজ্জাক ও তার সহযোগীদের গতিরোধ করা হলে রাজ্জাক চোরের দুই সহযোগী পালাতে সক্ষম হলেও জনতার হাতে আটক হয় রাজ্জাক। জনতা তাকে গন ধোলাই দেয়। পরে থানা পুলিশ গিয়ে রাজ্জাককে জনতার রোষানল থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। এ ঘটনায় থানায় নুরুল ইসলাম বাদি হয়ে পীরগঞ্জ থানায় রাজ্জাকের বিরুদ্ধে মোটরসাইকেল চুরির দায়ে মামলা দায়ের করেন। পীরগঞ্জ থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম জানান, রাজ্জাকের বিরুদ্ধে মোটরসাইকেল চুরির প্রায় অর্ধশত মামলা রয়েছে। তার জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার এক মাসও হয়নি। আবারও সে ধরা খেলো। তার বিরুদ্ধে থানায় মোটরসাইকেল চুরির মামলা দিয়ে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
আরও পড়ুনঃ  চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত ৫৭৬৩ জন

সংবাদটি শেয়ার করুন