সোমবার, ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নিরাপত্তা-জীবনমান উন্নয়নে সীমান্ত সড়ক

নিরাপত্তা-জীবনমান উন্নয়নে সীমান্ত সড়ক
  • বান্দরবানে দুর্গম এলাকায় নির্মাণ হচ্ছে ১ হাজার কিমি. সড়ক

সীমান্তের নিরাপত্তা ও তিন পার্বত্য জেলায় আন্ত:সংযোগ স্থাপনের লক্ষে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাধানে তিন পার্বত্য জেলার সীমান্ত এলাকায় নির্মিত হচ্ছে সীমান্ত সড়ক। প্রথম পর্যায়ে তিন পার্বত্য জেলায় নির্মিত হচ্ছে ৩১৭ কিমি. সীমান্ত সড়ক। এর মধ্যে বান্দরবান জেলার থানচি উপজেলার দূর্গম সীমান্ত এলাকায় নির্মিত হচ্ছে ৯২ কিলোমিটার সীমান্ত সড়ক। ইতোমধ্যে সড়কটির ৫০ শতাংশ কাজ সমাপ্ত হয়েছে। সড়কটি চালু হলে বাড়বে সীমান্তের নিরাপত্তা এবং দূর্গম এলাকায় বসবাসকারী বাসিন্দাদের জীবনমান উন্নত হবে। গত রবিবার সড়কটি পরিদর্শন করেন সেনা প্রধান জেনারেল এসএম শফিউদ্দিন আহমেদ।

সরেজমিনে দেখা যায়, তিন পার্বত্য জেলার সীমান্ত সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ১০৩৬ কিমি. নির্মাণ করা হবে। প্রথম পর্যায়ে নির্মাণ করা হবে ৩১৭ কিমি.। যার মধ্যে ৯২ কিমি. বান্দরবান জেলার রুমা, থানচি ও আলীকদম উপজেলার দূর্গম সীমান্ত এলাকায় নির্মিত হচ্ছে। ইতোমধ্যে বান্দরবান জেলার থানচি উপজেলার দূর্গম সীমান্তবর্তী এলাকার রেমাক্রী, লিক্রি ও বাকলাই এলাকায় সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে সীমান্ত সড়ক ও তিন পার্বত্য জেলার আন্তঃসংযোগ সড়কের কাজ শুরু হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় এই সীমান্ত সড়কটির মাধ্যমে স্থাপিত হবে জেলার বিভিন্ন উপজেলাসহ তিন পার্বত্য জেলার সঙ্গে আন্ত:সংযোগ সড়ক। এছাড়াও সড়কটি নির্মিত হলে জোরদার হবে সীমান্তের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। শুধু তাই নয় সড়কটির মাধ্যমে সহজ হবে দূর্গম এলাকায় উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণ এবং পাল্টে যাবে এলাকার মানুষের অর্থনৈতিক জীবনমান। এছাড়াও বন্ধ হবে অবৈধ মাদকের চোরা চালানসহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড।

আরও পড়ুনঃ  পৈশাচিক নির্যাতনে মাদ্রসাছাত্র হত্যা

বাকলাই এলাকার বাসিন্দারা বলেন, আগে আমাদেরকে থানচি বাজারে যেতে প্রায় একদিন সময় লাগতো। এখন এক ঘণ্টার মধ্যে আসা যাওয়া করা যায়। শুধু তাই নয় আমাদের জুমে উৎপাদিত কৃষিপণ্য সহজে বাজারজাত করা যাচ্ছে। যা আগে রাস্তা না থাকায় পরিবহনের অভাবে আমাদের কৃষি পণ্য জুমেই নষ্ট হয়ে যেতে। এছাড়াও এ রাস্তা হওয়ার কারণে শিক্ষা ও চিকিৎসার ক্ষেত্রে অনেক সুফল পাবে বলে মনে করেন এলাকাবাসী। 

রাস্তার কাজ কখন শেষ করা হবে জানতে চাইলে কোম্পানি অধিনায়ক ৩,১৬ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়ন মেজর মোস্তফা কামাল বলেন, তিন পার্বত্য জেলার আন্ত:সীমান্ত সংযোগ সড়কের মোট দৈর্ঘ্য ১০৩৬ কিমি.। যার মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ৩১৭ কিমি. বাস্তবায়ন করা হবে। ৩১৭ কিমি. এর মধ্যে প্রায় ৯২ কিমি. বান্দরবান সীমান্তে কাজ চলমান রয়েছে। ইতোমধ্যে সড়কটির ৫০ শতাংশ কাজ সমাপ্ত হয়েছে। শিগগিরই সড়কটির কাজ সমাপ্ত করে যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে বলেও জানান সেনাবাহিনীর এ কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৩৪ ব্রিগেড ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে তিন পার্বত্য জেলায় সীমান্ত সড়ক নির্মাণের কাজ শুরু করেন সেনাবাহিনীর ১৬, ২০ ও ২৬ ইসিবির ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়ান।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন