সোমবার, ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পেঁপে গাছের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা

পেঁপে গাছের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা

পেঁপে গাছের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা। ছাগলে গাছ খাওয়াকে কেন্দ্র করে বাগানের শতাধিক পেঁপে গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। এছাড়া বাগানের অর্ধশতাধিক কলাগাছও উঠিয়ে ফেলা হয়েছে। এতে কৃষি উদ্যোক্তা সাগর আকন্দের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে। টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে ছোট্ট ঘটনাকে কেন্দ্র করে বড় ধরণের অঘটনা ঘটেছে।

গতকাল শনিবার সকালে ভূঞাপুর পৌরসভার পশ্চিম ভূঞাপুর এলাকার কৃষি উদ্যোক্তা সাগর আকন্দের (২৭) পেঁপে ও কলাগাছ কেটে ফেলেছে। ওই এলাকার ইটল তরফদারের স্ত্রী শাহিদা বেগমের বিরুদ্ধে পেঁপেগাছগুলো কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে।

মৌখিক অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কেটে ফেলা পেঁপে বাগান সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন ভূঞাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. লিটন মিয়া।

জানা গেছে, পশ্চিম ভূঞাপুরের একজনের ২৫ শতাংশ জমি  লিজ নিয়ে পেঁপে ও কলার গাছের বাগান করে কৃষি উদ্যোক্তা যুবক সাগর আকন্দ। বাগানের প্রত্যেক গাছে পেঁপে ধরেছিল। এতে কয়েক লাখ টাকার পেঁপে বিক্রির স্বপ্ন দেখছিল সাগর।

ক্ষতিগ্রস্থ সাগর আকন্দ বলেন, প্রতিবেশী শাহিদার ছাগলটি প্রতিদিনই বাগানে প্রবেশ করতো। এতে সেখানে থাকা বিভিন্ন গাছের চারা খেয়ে ফেলতো ছাগল। বিষয়টি ছাগলের মালিক জানানো হয়। পরে সে ক্ষিপ্ত হয়ে বাগানের পাশেই ছাগল চড়াতো। শনিবার সকালে ছাগল বাগানে প্রবেশ করে এবং বেশ কয়েকটি পেঁপে, কলা গাছ ও বেগুন গাছ নষ্ট করে ফেলে। পরে ছাগলটি আটক করার কথা বলায় ওই নারী ক্ষিপ্ত হয়ে পেঁপে ও কলা গাছগুলো কেটে ফেলে। এসময় বাঁধা দিতে গেলে দা দিয়ে কোপাতে আসে। পরে ডাক-চিৎকার করলে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে তিনি পালিয়ে চলে যান।

আরও পড়ুনঃ  সিনেমার টানে অস্ট্রেলিয়া থেকে ঢাকায় শাবনূর

সাগরের বাবা লাল মিয়া আকন্দ জানান, ছেলে নারায়ণগঞ্জের একটি জাহাজ কোম্পানিতে চাকরি করতো। করোনাকালে তার চাকরি চলে যায়। পরে বাড়িতে এসে দীর্ঘদিন বেকার ছিল। পরবর্তীতে স্থানীয় মহিলা জনসংস্থার সবজি ব্যাংক থেকে ৬০ হাজার টাকা তার মা সাজেদা খাতুনের নামে ঋন নিয়ে ২৫ শতাংশ জমি লিজ নিয়ে সবজি বাগান করে। গাছগুলো কেটে ফেলায় ছেলেটি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে।

ভূঞাপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদুল ইসলাম বলেন, মৌখিকভাবে জানানোর পর ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। বিষয়টির তদন্ত প্রক্রিয়াধীন।

উপজেলা কৃষি অফিসার মো. হুমায়ূন কবির জানান, বিষয়টি শুনেছি। সরেজমিনে গিয়ে প্রশাসনের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন