শুক্রবার, ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দুর্নীতি প্রতিরোধে জাতীয় প্ল্যাটফর্ম প্রয়োজন

দুর্নীতিগ্রস্ত প্রশাসন এবং রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে উদ্যোক্তারা প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হচ্ছে। দেশকে বাসযোগ্য করতে হলে এখনই দুর্নীতি বন্ধ হওয়া দরকার। একটি কার্যকর জাতীয়ভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম গড়ে তোলার মাধ্যমে এই পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে।

সেন্টার ফর গভর্ন্যান্স স্টাডিজ (সিজিএস) আয়োজিত এক আঞ্চলিক মতবিনিময় সভায় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পখাতের উদ্যোক্তারা এসব কথা বলেন। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট এন্টারপ্রাইজ (সিআইপিই)- এর সহায়তায় আয়োজিত এই মতবিনিমিয় সভাটি ৬ই অগাস্ট, ২০২২ সিলেটের স্টার প্যাসিফিক হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়।

সিলেটের বিভাগের বিভিন্ন পর্যায়ের ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পখাতের প্রতিনিধিরা এতে অংশগ্রহণ করেন। উপস্থিত ছিলেন সিজিএসের নির্বাহী পরিচালক জিল্লুর রহমান, প্রোগ্রাম ডিরেক্টর সুবীর দাস এবং গবেষণা সহযোগী আব্দুল্লাহ আল জাফরী।

এক উদ্যোক্তা বলেন, একটি রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করতে প্রথমেই কমপক্ষে ১২ ধরনের অনুমতিপত্রের প্রয়োজন পড়ে। এ ধরনের পত্র গ্রহণের ক্ষেত্রে সরকারি অফিসগুলোতে বিভিন্ন পর্যায়ে দুর্নীতি এবং আমলাতান্ত্রিক জটিলতার দরুন প্রথমেই একজন ব্যবসায়ী নিরুৎসাহী হয় উঠেন। অনেকে বলেন, বন্যার কারণে সৃষ্ট ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সরকার বা সংগঠনগুলো থেকে খুব একটা সহায়তা পাওয়া যায়নি।

বক্তারা বলেন, বিভিন্ন ধরনের ব্যবসায়িক সংগঠনগুলো চাইলেই দুর্নীতি প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে কিন্তু রাজনীতিকরণের ফলে এসকল সংগঠনের ভূমিকা প্রতিনিয়ত প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে।

উদ্যোক্তারা ব্রিটিশ আমলে প্রণীত দুর্নীতি প্রতিরোধী আইনগুলো সংশোধনের সুপারশি করেন। বলেন, ভ্যাট ও ট্যাক্স নির্ধারণে সরকারকে বাংলাদেশের ব্যবসায়ের প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় প্রনীত ‘তথ্য অধিকারের আইনের’ মাধ্যমে ব্যবসায়ীরা তার প্রয়োজনীয় তথ্যের জন্য আবেদন করতে পারেন বলে উপস্থিত একজন বক্তা সুপারশি করেন।

আরও পড়ুনঃ  মধুমাসে জমজমাট ফলবাজার

আনন্দবাজার/শহক

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন