রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বন্যা ও টিলাধসে সিলেটে ২২ জনের মৃত্যু

গত কয়েকদিন ধরে সিলেটে ভারী বর্ষণ হয়েছে। এবং টিলা ও পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটেছে। উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ওই অঞ্চলের স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যায় দেখা দিয়েছে। এতে সিলেট এবং সুনামগঞ্জের প্রায় ৮০ শতাংশ এলাকা তলিয়ে যায় পানিতে। বানের পানিতে হবিগঞ্জ এবং মৌলভীবাজারের বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

গত দুদিন ধরে উজানের পানি কমতে শুরু করেছে। তবে ভাটিতে বন্যা পরিস্থিতি অব্যাহত রয়েছে। এ পরিস্থিতিতে সিলেট বিভাগে ২২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে সিলেট জেলায় ১৪ জন, হবিগঞ্জে পাঁচজন এবং মৌলভীবাজারে তিনজন।

ভয়াবহ বন্যার কারণে বিদ্যুৎ, মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক এবং ইন্টারনেট সেবা না থাকায় ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানির সুনির্দিষ্ট তথ্য এতদিন পাওয়া যায়নি। এসব সেবা সচল হওয়ার পরপরই একের পর এক আসছে মৃত্যুর সংবাদ।

সর্বশেষ আজ মঙ্গলবার সকালে সিলেটের জৈন্তাপুরে বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়া মা-ছেলের মরদেহ পানিতে ভেসে ওঠে।

বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় পরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় ২০ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তবে তাৎক্ষণিক সর্বশেষ দুজনের মরদেহ উদ্ধারের তথ্য তিনি জানাতে পারেননি।

ডা. হিমাংশু লাল রায় জানান, সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলো আশ্রয়কেন্দ্র এবং চিকিৎসাকেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। আমরা এ পর্যন্ত কয়েক লাখ মানুষকে চিকিৎসাসেবা দিয়েছি। এছাড়া শুধুমাত্র স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে ৭ লাখ পিস পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট এবং এক লাখ খাওয়ার সেলাইন বিতরণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ  ফেনীতে বাঁধ ভেঙে তিন গ্রাম প্লাবিত

আজ মঙ্গলবার সকালে সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার দরবস্ত এলাকায় পানিতে ভেসে ওঠে নাজমুন্নেসা ও তার ছেলে আব্দুর রহমানের মরদেহ। দরবস্ত ইউনিয়নের কলাগ্রামের বাসিন্দা তারা। জৈন্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আল বশিরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, গত শুক্রবারে নাজমুন্নেসা তার ছেলেকে নিয়ে পাশের গ্রামে মেয়ের বাড়িতে গিয়েছিলেন। মেয়ের বাড়িতেও পানি ওঠে। সেখান থেকে ফেরার রোববার পথে মা-ছেলে সড়কের পাশে পানিতে তলিয়ে যান। আজ তাদের মরদেহ ভেসে ওঠে।

কানাইঘাটে হাওরে মাছ ধরতে গিয়ে একজন মারা গেছেন বলে জানিয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. তাজুল ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার উপজেলার সাতবাক ইউনিয়নের ঠাকুরের ঘাটি এলাকার এক ব্যক্তি হাওরে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন। পরদিন পানিতে তার মরদেহ পাওয়া যায়।

সিলেট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নুসরাত আজমেরী হক সোমবার বলেন, বন্যায় এ পর্যন্ত তিনজন মারা যাওয়ার খবর তিনি জেনেছেন। এর মধ্যে একজন বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ও দুজন পানিতে ভেসে গিয়ে মারা গেছেন। এছাড়া পানিতে ভেসে যাওয়া একজন এখনো নিখোঁজ আছেন।

তিনি আরও বলেন, সোমবার সিলেট সদর উপজেলার জালালাবাদ থানার নোয়াপাড়া এলাকার নিজ বাসায় বন্যার পানির ময়লা পরিষ্কার করতে গিয়ে বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেছেন মনির হোসেন নামে এক যুবক। শুক্রবার উপজেলার নলকট গ্রামের কলেজছাত্র আব্দুল হাদি পানিতে তলিয়ে যায়। ওইদিনই তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সে সময় আরও একজন পানিতে তলিয়ে মারা গেছেন।

সিলেট এবং সুনামগঞ্জে বন্যাকবলিতদের উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে সেনাবাহিনী। উদ্ধারকাজে নিয়োজিত সেনাবাহিনীর এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, আমরা কানাইঘাট থেকে অসুস্থ অবস্থায় সাতজনকে উদ্ধার করেছি। তার মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তবে মৃত্যুর কোনো তথ্য এখন পর্যন্ত আমরা পাইনি।

আরও পড়ুনঃ  বন্যায় বেড়েছে সাপের উপদ্রব

আনন্দবাজার/টি এস পি

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন