শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
নদ-নদীর কান্না -পর্ব-২

পানির যোগানে মহাবিপদ

পানির যোগানে মহাবিপদ

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে শুধু পৃথিবীর পরিবেশ-প্রতিবেশই ঝুঁকিতে নেই, আবহমান নদ-নদীর জন্যও বড় বিপদ নিয়ে আসছে। বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ভূ-পৃষ্ঠের উপরিতলের পানির উৎসগুলোকে যেমন প্রভাবিত করছে, তেমনি হিমবাহের বরফ গলে নদীতে ভয়াবহ বন্যা ডেকে আনছে। যা জনপদকে লণ্ডভণ্ড করে দিচ্ছে। একইসঙ্গে আবার চাষাবাদ আর দৈনন্দিন জীবনযাপনে ভূগর্ভের পানি অত্যধিক উত্তোলনের ফলে নদী পানিশূন্য হয়ে পড়ছে। বিশেষ করে উপমহাদেশের গঙ্গা-সিন্ধুর মতো নদীগুলোর আচরণ অস্বাভাবিক হয়ে উঠছে। যা সভ্যতাকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করছে। মানচিত্রহীন নদ-নদীর বিপদ নিয়ে ফারুক আহমাদ আরিফের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ দ্বিতীয় পর্ব- ‘পানির যোগানে বিপদ’

বিশ্বে বর্তমানে প্রতিবছর অন্তত এক মাস পানির অপর্যাপ্ত যোগানের সম্মুখীন হতে হয় তিনশ কোটি ৬০ লাখ মানুষকে। আর এই সংখ্যা আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে পাঁচশ কোটির বেশি হবে। এমন আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। তা ছাড়া সমস্ত প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যে ৭৪ শতাংশই জল-সম্পর্কিত। ওয়ার্ল্ড মেথোরোলজিকেল অর্গানাইজেশন-ডব্লিউএমও সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় গত ২৯ নভেম্বর ‘পরিবর্তিত জলবায়ুতে মিঠা পানির প্রাপ্যতা’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এসব তথ্য তুলে ধরে। প্রতিবেদনের তথ্যগুলো নাসা-জিআই গ্রেস (গ্র্যাভিটি রিকভারি এবং ক্লাইমেট এক্সপেরিমেন্ট) মিশনের ওপর ভিত্তি করে তৈরি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, পৃথিবীর জল সম্পদের ওপর জলবায়ু, পরিবেশগত এবং সামাজিক পরিবর্তনের প্রভাবগুলো মূল্যায়ন করার জন্য বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা-ডব্লিউএমও তার প্রথম স্টেট অফ গ্লোবাল ওয়াটার রিসোর্স প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এই বার্ষিক প্রতিবেদনের লক্ষ্য হলো- ক্রমবর্ধমান চাহিদা এবং সীমিত সরবরাহের যুগে বিশ্বব্যাপী স্বাদু পানির সম্পদের নিরীক্ষণ ও ব্যবস্থাপনাকে মূল্যায়ন করা। প্রতিবেদনে নদী প্রবাহের পাশাপাশি বড় বন্যা ও খরার সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেওয়া হয়েছে। এটি স্বাদুপানির সঞ্চয়ের পরিবর্তনের জন্য হটস্পটগুলোর অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করে। ক্রায়োস্ফিয়ারের (তুষার এবং বরফ) গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা এবং দুর্বলতাকে চিহ্নিত করে।

প্রতিবেদনে ২০২১ সালে পৃথিবীর বড় অঞ্চলগুলো স্বাভাবিক অবস্থার তুলনায় কতটা শুষ্ক তা রেকর্ড করা হয়েছে। গত বছরটি ছিল বৃষ্টিপাতের ধরণ, জলবায়ু পরিবর্তন এবং লা নিনা প্রভাবিত। যা ৩০ বছরের হাইড্রোলজিক্যাল গড়ের তুলনায় নিম্ন-গড় প্রবাহসহ এলাকাটি উপরের-গড় এলাকার তুলনায় প্রায় দুই গুণ বড় ছিল।

আরও পড়ুনঃ  খাদ্যেমূল্যে ছয় দশকের রেকর্ড

ডব্লিউএমও মহাসচিব অধ্যাপক পেটেরি তালাস বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবগুলো প্রায়শই জলের মাধ্যমে অনুভূত হয়। আরও তীব্র এবং ঘন ঘন খরা, চরম বন্যা, অনিয়মিত মৌসুমী বৃষ্টিপাত এবং হিমবাহের ত্বরান্বিত গলন। এসব অর্থনীতি, বাস্তুতন্ত্র এবং আমাদের দৈনন্দিন জীবনের সমস্ত দিকগুলোতে ক্যাসকেডিং প্রভাব বিস্তার করে। এখনও মিঠা পানির সম্পদের বণ্টন, পরিমাণ এবং মানের পরিবর্তনের অপর্যাপ্ত বোধগম্যতা রয়েছে।

অধ্যাপক তালাস বলেন, দ্য স্টেট অফ গ্লোবাল ওয়াটার রিসোর্সেস রিপোর্টের লক্ষ্য হচ্ছে সেই জ্ঞানের শূন্যতা পূরণ করা এবং বিশ্বের বিভিন্ন অংশে জলের প্রাপ্যতার সংক্ষিপ্ত ওভারভিউ প্রদান করা। এটি জলবায়ু অভিযোজন এবং প্রশমন বিনিয়োগের পাশাপাশি আগামী পাঁচবছরে বন্যা এবং খরার মতো বিপদের প্রাথমিক সতর্কবার্তার সার্বজনীন বোধগম্যতা প্রদানের জন্য জাতিসংঘের প্রচারাভিযানকে অবহিত করবে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমানে ৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন (তিনশ কোটি ৬০ লাখ) মানুষকে প্রতিবছর অন্তত এক মাসে পানির অপর্যাপ্ত যোগানের মুখে পড়তে হয়। যে বিপদ আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে ৫ বিলিয়ন বা পাঁচশ কোটি মানুষকে বিপদে ফেলতে যাচ্ছে।

ইউএন-ওয়াটারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০০১ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে যে সমস্ত প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়েছে তার মধ্যে ৭৪ শতাংশই জল-সম্পর্কিত। সাম্প্রতিক জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলন কপ২৭, অভিযোজন প্রচেষ্টায় জলকে আরও একীভূত করার জন্য সরকারগুলোর প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। সমালোচনামূলক গুরুত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রথমবারের মতো জলকে কপ ফলাফলের নথিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনটি প্রাপ্ততা যাচাইকৃত হাইড্রোলজিক্যাল ডেটার অভাবকে তুলে ধরে। ডব্লিউএমও-এর ইউনিফাইড ডেটা পলিসি হাইড্রোলজিক্যাল ডেটার প্রাপ্যতা এবং ভাগাভাগি ত্বরান্বিত করতে চায়, যার মধ্যে নদী নিষ্কাশন এবং আন্তঃসীমান্ত নদী অববাহিকার তথ্যও রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ  বিশ্বে গমের দামে ভাটা

স্রোতপ্রবাহ
৩০ বছরের হাইড্রোলজিক্যাল বেস পিরিয়ডের গড় তুলনায় ২০২১ সালে পৃথিবীর বড় অঞ্চলগুলো স্বাভাবিক অবস্থার তুলনায় শুষ্কতা রেকর্ড করেছে। এই অঞ্চলগুলোর মধ্যে রয়েছে দক্ষিণ আমেরিকার রিও দে লা প্লাটা এলাকা। অঞ্চলটিতে ২০১৯ সাল থেকে অবিরাম খরা চলছে। দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব আমাজন এবং কলোরাডো, মিসৌরি এবং মিসিসিপি নদী অববাহিকাসহ উত্তর আমেরিকার অববাহিকাগুলোকেও প্রভাবিত করেছে।
আফ্রিকায়, নাইজার, ভোল্টা, নীলনদ এবং কঙ্গোর মতো নদীতে ২০২১ সালে স্বাভাবিকের চেয়ে কম স্রোত ছিল।

একইভাবে রাশিয়ার কিছু অংশ, পশ্চিম সাইবেরিয়া এবং মধ্য এশিয়ার নদীগুলো ২০২১ সালে গড় স্রোতের চেয়ে কম ছিল। এ দিকে উত্তর আমেরিকার কিছু অববাহিকা, উত্তর আমাজন এবং দক্ষিণ আফ্রিকা (জাম্বেজি এবং অরেঞ্জ), সেইসাথে চীন (আমুর নদী অববাহিকা) এবং উত্তর ভারতে স্বাভাবিক নদীর স্রোত বেশি ছিল।

বিশ্লেষিত এলাকার প্রায় এক তৃতীয়াংশ ৩০ বছরের গড়ের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ ছিল। এর মধ্যে চীন (হেনান প্রদেশ), উত্তর ভারত, পশ্চিম ইউরোপ এবং মোজাম্বিক, ফিলিপাইন এবং ইন্দোনেশিয়ার মতো গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঘূর্ণিঝড়পূর্ণ দেশগুলোতে অন্যান্যদের মধ্যে অসংখ্য হতাহত ও বন্যার ঘটনা ঘটেছে। ইথিওপিয়া, কেনিয়া এবং সোমালিয়া পরপর বেশ কয়েক বছর ধরে গড় থেকে কম বৃষ্টিপাতের কারণে আঞ্চলিক খরার সম্মুখীন হয়েছে।

ভূ-গর্ভস্থ পানি সঞ্চয়
স্থলজ জলের সঞ্চয় হলো- স্থলভাগের এবং ভূ-পৃষ্ঠের সমস্ত জল। ২০২১ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম উপকূলে, দক্ষিণ আমেরিকার কেন্দ্রীয় অংশ এবং প্যাটাগোনিয়া, উত্তর আফ্রিকা এবং মাদাগাস্কার, মধ্য এশিয়া এবং মধ্যাঞ্চলে স্থলজ জলের সঞ্চয়কে স্বাভাবিকের নিচে (২০০২-২০২০ সালের গড় হিসাবের তুলনায়) হিসাবে লিপিবদ্ধ করা হয়েছিল। এর মধ্যে রয়েছে পূর্ব, পাকিস্তান ও উত্তর ভারতও। তবে আফ্রিকার মধ্যাঞ্চল, দক্ষিণ আমেরিকার উত্তরাঞ্চল, বিশেষ করে আমাজন অববাহিকা এবং চীনের উত্তরাঞ্চলে এটি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ছিল।

আরও পড়ুনঃ  'গণপরিবহন বিষয়ে সিন্ধান্তের আগে আলোচনা করে নিলে ভালো হতো'

দীর্ঘমেয়াদী ভিত্তিতে প্রতিবেদনে স্থলজ জল সঞ্চয়ের নেতিবাচক প্রবণতাসহ বেশ কয়েকটি হটস্পট উল্লেখ করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ব্রাজিলের রিও সাও ফ্রান্সিসকো অববাহিকা, প্যাটাগোনিয়া, গঙ্গা এবং সিন্ধু হেডওয়াটার, পাশাপাশি দক্ষিণ-পশ্চিম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এর বিপরীতে নাইজার অববাহিকা, পূর্ব আফ্রিকান রিফ্ট এবং উত্তর আমাজন বেসিনের মতো গ্রেট লেক অঞ্চল ইতিবাচক অবস্থায় রয়েছে। সামগ্রিকভাবে নেতিবাচক প্রবণতা ইতিবাচক প্রবণতাগুলোর চেয়ে শক্তিশালী। কিছু হটস্পট সেচের জন্য ভূ-গর্ভস্থ পানির অত্যধিক বিমূর্তকরণের ফলে বৃদ্ধি পায়। তুষার এবং বরফ গলে যাওয়া আলাস্কা, প্যাটাগোনিয়া এবং হিমালয়সহ বেশ কয়েকটি অঞ্চলে উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলে থাকে।

ক্রায়োস্ফিয়ার
ক্রায়োস্ফিয়ার, যেমন হিমবাহ, তুষার আচ্ছাদন, বরফের ছিদ্র এবং যেখানে বর্তমান, পারমাফ্রস্ট হলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় মিষ্টি জলের প্রাকৃতিক আধার। পর্বতগুলোকে প্রায়শই প্রাকৃতিক ‘জলের আধার’ বলা হয়। কারণ তারা আনুমানিক ১ দশমিক ৯ বিলিয়ন (একশ কোটি ৯০ লাখ) মানুষের জন্য নদী এবং স্বাদু পানির সরবরাহের উৎস। ক্রায়োস্ফিয়ার জল সম্পদের পরিবর্তন খাদ্য নিরাপত্তা, মানব স্বাস্থ্য, বাস্তুতন্ত্রের অখণ্ডতা এবং রক্ষণাবেক্ষণকে প্রভাবিত করে। একই সাথে অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলে। এই ধরনের পরিবর্তনগুলো হিমবাহ হ্রদের বিস্ফোরণের কারণে নদী বন্যা এবং আকস্মিক বন্যার মতো বিপদের কারণও হয়।

ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রার সাথে বার্ষিক হিমবাহের রান-অফ সাধারণত প্রথমে বাড়তে থাকে, যতক্ষণ না একটি টার্নিং পয়েন্ট। যাকে প্রায়শই ‘পিক ওয়াটার’ বলা হয়। সেখানে পৌঁছানো হয় যেখানে রান-অফ হ্রাস পায়। হিমবাহের পরিবর্তনের দীর্ঘমেয়াদী অনুমান এবং সর্বোচ্চ জলের সময় দীর্ঘমেয়াদী অভিযোজনের মূল উৎস। ডব্লিউএমও স্টেট অফ গ্লোবাল ওয়াটার রিসোর্সেসের ভবিষ্যৎ মূল্যায়নগুলো বেসিন এবং আঞ্চলিক স্তরে ক্রায়োস্ফিয়ারের পরিবর্তন এবং জল সম্পদের পরিবর্তনশীলতা নিয়মিতভাবে মূল্যায়ন করার জন্য উদ্দীপনা প্রদান করবে।

আনন্দবাজার/শহক

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন