মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশকে সাড়ে ৪ বিলিয়ন ডলার দেবে এআইআইবি

জলবায়ু সমস্যা মোকাবিলায় অর্থায়ন এবং পাবলিক ও প্রাইভেট বিনিয়োগে আগামী ৫ বছরে বাংলাদেশে ৪.৫ বিলিয়ন ডলার দেবে এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (এআইআইবি)।

মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘আগামী ৫ বছরের জন্য এআইআইবি অর্থায়নের বাংলাদেশের পাইপলাইনে ৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার রয়েছে। যা বাংলাদেশে আগামী ৫ বছরে জলবায়ু সমস্যা মোকাবেলায় অর্থায়ন এবং পাবলিক ও প্রাইভেট বিনিয়োগের মধ্যে সেতুবন্ধনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে।’

এছাড়াও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মিশরের শারম আল শেখে (২৫ ও ২৬ সেপ্টেম্বর) এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকের (এআইআইবি) বোর্ড অব ডাইরেক্টরস এবং অষ্টম বার্ষিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবারের বার্ষিক সভায় জলবায়ু অর্থায়ন এবং পাবলিক ও প্রাইভেট বিনিয়োগের মধ্যে সেতু বন্ধনের ওপরে জোর দেওয়া হয়েছে। সভায় বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব শরিফা খানের জলবায়ু সহিষ্ণু অবকাঠামো নির্মাণের বেশি অর্থায়নের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, বিশ্ব সম্প্রদায়, উন্নত থেকে উন্নয়নশীল সব দেশই এই মুহূর্তে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। যার বেশিরভাগ রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, জলবায়ু পরিবর্তন, বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি ইত্যাদি কারণে উদ্ভূত। বিশেষ করে জলবায়ু সহিষ্ণু অবকাঠামো নির্মাণ বর্তমান সময়ে অত্যন্ত জরুরি। বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার ঝুঁকিতে আছে।

‘আগামী জলবায়ু চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় এআইআইবি সদস্যদের পাশে থাকবে। আমাদের অবশ্যই গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন দ্রুত কমাতে, আবহাওয়ার চরম অবস্থায় শক্তিশালী প্রতিরোধ গড়ে তুলতে এবং পৃথিবীতে জীবনকে সম্ভব করে তোলে এমন প্রাকৃতিক পুঁজি রক্ষায় একসঙ্গে কাজ করতে হবে বলে জানান এআইআইবি সভাপতি ও বোর্ডের চেয়ারম্যান জিন লিকুন।’

আরও পড়ুনঃ  বাংলাদেশের অংশগ্রহণ জি-২০ সম্মেলনকে সমৃদ্ধ করবে: প্রণয় ভার্মা

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল গভর্নরস বিজনেস রাউন্ড টেবিল, সেমিনার, গভর্নরস অফিশিয়াল সেশনে অংশগ্রহণ করে। পাশাপাশি এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকের (এআইআইবি) বিনিয়োগ অপারেশন অঞ্চল-১ দক্ষিণ এশিয়া, প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জ এবং দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার ভাইস প্রেসিডেন্ট ড. উর্জিত প্যাটেলের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সভা অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিপাক্ষিক সভায় বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল বর্তমান বাস্তবতার প্রেক্ষিতে এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকের (এআইআইবি) ঋণের শর্তগুলো আরও সহনশীল করার ওপর গুরুত্বারোপ করে। বাংলাদেশে বর্তমানে এআইআইবির চলমান বিভিন্ন প্রকল্প এবং ভবিষ্যৎ সম্ভাব্য প্রকল্প নিয়েও দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনা হয়।

এআইআইবির বাংলাদেশে ২০১৬ সালে বিদ্যুৎ খাতে ১৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি প্রকল্পের মাধ্যমে বিনিয়োগ শুরু হয়েছিল। প্রথম ৩ বছরে ৪টি প্রকল্পে এআইআইবির অর্থায়ন ছিল ৪৪৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা বর্তমানে বেড়ে ১৮টি প্রকল্পে ৩ হাজার ২৭০ মিলিয়ন হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন