সোমবার, ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফি বকেয়া ডিপিদের বিরুদ্ধে বিএসইসির ব্যবস্থা

ফি বকেয়া ডিপিদের বিরুদ্ধে বিএসইসির ব্যবস্থা

এবার দীর্ঘদিন ধরে সিডিএস ও বার্ষিক হিসাব রক্ষণাবেক্ষণ ফি বকেয়া রাখা ডিপজিটরি পার্টিসিপ্যান্টদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। গতকাল বুধবার বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম সাক্ষরিত এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হয়।

ওই নির্দেশনায় যেসব ডিপজিটরি পার্টিসিপ্যান্টদের সিডিএস ও বার্ষিক হিসাব রক্ষণাবেক্ষণ ফি বকেয়া থাকবে, তাদের বিরুদ্ধে বিদ্যমান আইনের পাশাপাশি আইপিও কোটা বাতিলসহ ৫টি সুনির্দিষ্ট শাস্তির কথা বলা হয়। যা অবিলম্বে কার্যকরে ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জ এবং সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি বাংলাদেশ লিমিটেডকে (সিডিবিএল) নির্দেশ দেওয়া হয়।

নির্দেশনায় সিডিএস ও বার্ষিক হিসাব রক্ষণাবেক্ষণ ফি বকেয়া রাখা ডিপজিটরি পার্টিসিপ্যান্টদের ট্রেকহোল্ডার মার্জিন রেগুলেশনের ফ্রি লিমিট সুবিধা স্থগিত থাকবে। এছাড়া সংশ্লিষ্ট স্টক এক্সচেঞ্জ থেকে মালিকানার বিপরীতে লভ্যাংশ প্রাপ্তি, আইপিও/আরপিও কোটা, ট্রেকহোল্ডার কোম্পানি ও ডিপোজিটরি অংশগ্রহণকারীর (ডিপি) নিবন্ধন সনদ নবায়ন এবং নতুন শাখা বা ডিজিটাল বুথ খোলার সুবিধা স্থগিত থাকবে।

এদিকে, বিনিয়োগকারীদের সমন্বিত হিসাব থেকে টাকা ও ডিপোজিটরি থেকে সিকিউরিটিজ ঘাটতি বা আত্মসাতকারী স্টেকহোল্ডারদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে গত ২২ মার্চ অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম এক নির্দেশনা জারি করেছিল।

২২ মার্চ ওই নির্দেশনায় বিনিয়োগকারীদের সমন্বিত হিসাবে অর্থ ও ডিপিতে সিকিউরিটিজ ঘাটতি পাওয়া গেলে, তা সমন্বয় না করা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডার কোম্পানির বিরুদ্ধে বিদ্যমান আইনের পাশাপাশি আইপিও কোটা বাতিলসহ ৫টি সুনির্দিষ্ট শাস্তির কথা বলা হয়। যা অবিলম্বে কার্যকরে ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জ এবং সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি বাংলাদেশ লিমিটেডকে (সিডিবিএল) নির্দেশ দেওয়া হয়।

আরও পড়ুনঃ  বিএসআরএমের ইপিএস বেড়েছে ৬৪ শতাংশ

নির্দেশনায় অর্থ ও সিকিউরিটিজ ঘাটতি থাকা স্টেকহোল্ডার কোম্পানি মার্জিন রেগুলেশনের ফ্রি লিমিট সুবিধা স্থগিত থাকবে। এছাড়া সংশ্লিষ্ট স্টক এক্সচেঞ্জ থেকে মালিকানার বিপরীতে লভ্যাংশ প্রাপ্তি, আইপিও/কিউআইও কোটা, স্টেকহোল্ডার কোম্পানি ও ডিপোজিটরি অংশগ্রহণকারীর (ডিপি) নিবন্ধন সনদ নবায়ন ও নতুন শাখা বা ডিজিটাল বুথ খোলার সুবিধা স্থগিত থাকবে।

এর বাহিরে স্টেকহোল্ডার কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের অর্থ ও সিকিউরিটিজ ঘাটতি সমন্বয়ের পর ন্যূণতম ১ বছর সংশ্লিষ্ট স্টক এক্সচেঞ্জ বিশেষ তদারকি করবে বলে নির্দেশনায় জানানো হয়। এছাড়া প্রতিমাসে দুইবার সমন্বিত গ্রাহক হিসাব ও ডিপিতে থাকা সিকিউরিটিজ যাচাই করা হবে। স্টক এক্সচেঞ্জ ও সিডিবিএলকে এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন ও কমিশনে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয় গত ২২ মার্চ।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন