শুক্রবার, ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শ্রীনগরে সরিষার ফলন বিপর্যয়ের শঙ্কা

সরিষা

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে সরিষার আশানুরূপ ফলন না পাওয়ার শঙ্কায় পড়েছে কৃষকরা। উপজেলায় এ বছর প্রায় ৭০০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের আগাম সরিষাচাষের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে চাষাবাদ শুরু করা হয়। তবে অসময়ে টানাবৃষ্টির পানিতে সরিষার জমিতে জলাবদ্ধ হয়ে অনেক জমি নষ্ট হয়। পানি নিস্কাশনের পর পুনরায় বীজ বপন করতে বিলম্বনায় পড়েন কৃষক। দেখা যায়, উপজেলার আড়িয়াল বিল এলাকার মদনখালী, শ্রীধরপুর, হাঁসাড়া, আলমপুর, বীরতারা ও ভাগ্যকুলের পদ্মার চরে সরিষার চাষা করা হয়েছে। এসব এলাকার প্রায় ৬০ ভাগ জমিতে সরিষার বীজ পরিপক্ক হচ্ছে। কিছুদিন পরেই জমিতে সরিষা কাটা শুরু হবে। আবার কোনো কোনো জমিতে সবেমাত্র সরিষার ফুল আসতে শুরু করছে। এখানে দেশিয় জাতের রাই/চৈতা ও মাঘি হাইব্রিড সরিষার আবাদ বেশি করা হয়েছে।

বাড়ৈখালী এলাকার কৃষক গাজী আব্দুল মান্নান বলেন, প্রায় ৬০ শতাংশ জমিতে সরিষার চাষ করছেন। আশানুরূপ ফলন হয়নি। ওই এলাকার বিশ্বনাথ মন্ডল ও রতন মন্ডল বলেন, অসময়ের বৃষ্টিতে সরিষাচাষে তাদের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে। সরিষাবাদে এখন ওই জমিতে ধান চাষের প্রস্তুতি নিচ্ছি। পশ্চিম হাঁসাড়ার মো. তালেব মিয়া বলেন, প্রায় ১৪০ শতাংশ (এক কানি) জমিতে সরিষার চাষ করেছেন। এ বছর জমিতে সরিষার অর্ধেক ফলন হবে কি’না সন্দেহ আছে। ১০/১৫ দিন পরে জমিতে সরিষা কাটার পরে ধানের চারা রোপণ করবেন।  

শ্রীনগর উপজেলা কৃষি অফিসার শান্তনা রানী জানান, প্রায় ৩৮৩ হেক্টর জমিতে সরিষা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। অসময়ে টানা বৃষ্টিতে কিছু সরিষার জমি নষ্ট হয়েছে। কৃষক পুনরায় জমিতে বীজ বপন করছেন। সার্বিক পরিস্থিতিতে সরিষার আশানুরূপ ফলন না হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
আরও পড়ুনঃ  উপকূলে আঘাত হানবে ঘূর্ণিঝড় 'হামুন', জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা!

সংবাদটি শেয়ার করুন