শুক্রবার, ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশেষ পদ্ধতিতে পটল চাষে সাফল্য

বিশেষ পদ্ধতিতে পটল চাষে সাফল্য

কুড়িগ্রামের উলিপুরে বিশেষ পদ্ধতিতে পটলের চাষে সুফল পেয়েছে এক চাষি। এছাড়া উপজেলার সকল ইউনিয়নে পটলের বাম্পার ফলন হয়েছে। বাম্পার ফলন হওয়ায় পটল চাষিরা অনেক খুশি। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের এলাকাগুলোর মধ্যে থেতরাই ইউনিউনের সাতদরগাহ ফকির পাড়া গ্রামের আবু সাঈদ নামের এক পটল চাষি বিশেষ অভিনব পদ্ধতিতে পটলের চাষ করে সুফল পেয়েছেন। তিনি বলেন, জমিতে পটলের চাষ ভালো হয়েছে। জমিতে থাকা পটল বুলবুলি পাখি সহ বিভিন্ন জাতের পাখি এসে পটলের গায়ে ঠোঁট লাগিয়ে নষ্ট করে ফেলে। এজন্য আমি নেট জাল জমির উপর দিয়ে ঢেকে রেখে সুফল পেয়েছি। এছাড়া এবারে পটলের বাম্পার ফলন হয়েছে। তাতে পটল চাষিদের মনে আনন্দ দেখা যায়। উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, এবারে উপজেলায় পটল চাষের লক্ষ্যমাত্রা প্রায় ১১ থেকে ১২ হেক্টর। আরও জানান, প্রায় উপজেলার সকল ইউনিয়নে পটল চাষ করা হয়েছে।

উপজেলার থেতরাই ইউনিয়নের সাতদগাহ ফকির পাড়া গ্রামের আবু তাহের পটল চাষি বলেন, আমি প্রায় ৮৫ শতক জমিতে পটল চাষ করেছি আমার পটলের ফলন অনেক ভালো হয়েছে। তিনি আরও বলেন আমার এই ৮৫ শতক জমিতে পটল চাষ করতে প্রায় খরচ হবে ১ লক্ষ টাকা। যে ভাবে বাম্পার ফলন হয়েছে তাতে আমি পটল পাবো প্রায় ৩শ থেকে ৩শত ৫০ মন। যার মুল্য পাব প্রায় ৩ থেকে ৪ লক্ষ টাকা।

অন্যান্য পটল চাষিদের মধ্যে আবু সাঈদ, নুর ইসলাম, আজিজার, সাহাজামাল, আশরাফুল, বাবুল, সাইদুর, সাত্তার, আউয়াল, গোলজার, ইন্দাল, বককর, সাইদুল, বচ্চু, শফিকুল, শহিদ ও আলম সহ আরও অনেক পটল চাষি বলেন, এবার আমাদের পটলের চাষ অনেক ভালো হয়েছে। তারা আরও বলেন উপজেলা কৃষি অফিস থেকে সার, পরামর্শ ও বভিন্ন রকমের সঞ্জাম দিয়ে সহায়তা করেছে। এজন্য আবার পটলের বাম্পার ফলন হয়েছে। আশা করি অনেক টাকা ইনকাম করতে পারব।

আরও পড়ুনঃ  ভুট্টা চাষে ফলনে বেজার, দামে খুশি

উপজালা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আর এফ বানু বলেন, এবার পটলের বাম্পার ফলন হয়েছে। বিষেশ করে এক পটল চাষি বিষেশ পদ্ধতিতে পটল চাষ করে অনেক সুফল পেয়েছেন। তাই কৃষদের মনে অনেক আনন্দ। আমরা সবসয় পটল চাষিদের বিভিন্ন রকমের রোগ বালাই সম্পর্কে অবগত করাই। কখন কি ঔষধ প্রয়োগ করতে হবে তা জানিয়ে দেই। তাতে করে কৃষদের অনেক উপকার হয়েছে। এতে করে কৃষকরা পটল বাজারে বিক্রি করে অনেক টাকা পাবার সম্ভাবনা রয়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ সাইফুল ইসলাম বলেন, এবারে পটলের বাম্পার ফলন হয়েছে। এবারে উপজেলায় পটল চাষের লক্ষ্যমাত্রা প্রায় ১২ হেক্টর। তিনি আরও বলেন উপজেলার সকল ইউনিয়নে পটলের বাম্পার ফলন হওয়ায় কৃষকেরা অনেক খুশি।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন