শুক্রবার, ১২ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২৮শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অনিয়মের মধ্য দিয়েই শুরু ঘুলুয়া-হুগুলিয়া সড়কের কাজ

অনিয়মের মধ্য দিয়েই শুরু ঘুলুয়া-হুগুলিয়া সড়কের কাজ

সম্প্রতি অনিয়মের মধ্য দিয়েই শুরু হয়েছে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার সুখাইড় রাজাপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের ঘুলুয়া গ্রাম থেকে হুগুলিয়া ঘাট পর্যন্ত সড়ক মেরামতের কাজ। কাজ শুরু হয়েছে প্রায় ১০/১২দিন আগে থেকে। আর এ কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে অত্যন্ত নিম্নমানের সামগ্রী ।

এলাকাবাসী এ কাজ নিয়ে আপত্তি তোলেন। কিন্তু কাজে নিযুক্ত ব্যক্তিরা একালাবাসি কে কোন ধরণের গুরুত্ব না দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। এরই প্রতিবাদে প্রতিবাদের ঝর তুলেছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেইসবুকে আবার কেউ সহযোগিতা ছেয়েছেন সাংবাদিকদের। চলমান কাজে নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহারের চিত্র তুলে ধরতে এলাকার সচেতন যুবক মহল ব্যবহার করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে, ছবি পোস্ট করে সাংবাদিক ও প্রশাসনের দৃষ্টিও আকর্ষণ করেছেন তাঁরা।

এ সময় এলাকাবাসীর প্রতিবাদের কিছু সময় কাজ বন্ধ থাকে। এলাকার লোকজন চলে গেলে আবারও শুরু হয় কাজ। গত মঙ্গলবার সকালে ধর্মপাশা উপজেলার সুখাইড় রাজাপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের ঘুলুয়া গ্রামের সামনে থেকে হুগুলিয়া ঘাট পর্যন্ত সড়ক মেরামত ও কাজের দরবাগিয়া কান্দা ও লালন বাড়ির মধ্যবর্তী জায়গায় এমনটি ঘটে।

এলজিইডির অধীনে হাওরাঞ্চলে বন্যা ব্যবস্থাপনা ও জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প থেকে ধর্মপাশার সুখাইড় রাজাপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের ঘুলুয়া গ্রামের সামনে থেকে হুগুলিয়া ঘাট পর্যন্ত সড়ক মেরামত কাজের জন্য সাত কোটি দুই লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। এ কাজের জন্য ঠিকাদার নিযুক্ত করা হয় নেত্রকোনার অসিম সিং প্রীতম এন্টারপ্রাইজ নামে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে। ১০/১২ দিন আগে থেকে সড়ক মেরামত কাজ শুরু করেন ঠিকাদার।

আরও পড়ুনঃ  বাঁশখালীর প্রধান সড়কে কাঁচাবাজার, প্রতিনিয়ত লেগে থাকে যানজট

এলাকাবাসির অভিযোগ, এ কাজের শুরু থেকেই নিম্নমানের মাটি মিস্রিত বালু, পাথর ও পরিমাণে কম সিমেন্ট ব্যবহার করছে ঠিকাদারের লোকজন। গত মঙ্গলবার রাজাপুর গ্রামের প্রায় ১৫/২০ যুবকমহল সহ এলাকার লোকজন এ কাজ দেখতে যান। এ সময় কাজে অনিয়ম হচ্ছে দেখে তারা প্রতিবাদ করেন। এতে কাজ না হলে তাঁরা তাদের ফেইসবুকে ছবি সহ আপলোড করেন।

রাজাপুর গ্রামের যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ আবুল খায়ের, জুবায়ের আহমেদ, সাইদুল ইসলাম সাজুল, বখতিয়ার আমিন অপু তারা বলেন, মাটি মিস্রিত বালু, পাথর ও পরিমাণে কম সিমেন্ট ব্যবহার করছে ঠিকাদারের লোকজন। এভাবে যদি সমস্ত কাজ সম্পন্ন করে তাহলে এই সড়ক বেশি দিন টিকবে না। কাজের গুণগত মান নিশ্চিত করে ভালোভাবে কাজ সম্পন্ন করার জন্য সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করছি।

চলমান কাজের একজন নির্মাণ শ্রমিকের কাছে এ কাজের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ব্লক বানানোর জন্য যে বালু পাথর ও সিমেন্ট এর মসল্লা (নির্মাণ উপকরণ) ব্যবহার করছেন তার মধ্যে ১০/১২ টা বালি ১৬ টা পাথর ও এক বস্তা সিমেন্ট দারা তৈরিকৃত মসল্লা (নির্মাণ উপকরণ ) ব্লকের কাজে ব্যবহার হচ্ছে।

ঠিকাদার গোলাম এরশাদুর রহমান বলেন, আমি নিয়ম অনুযায়ী ও যেখানে যা দরকার তা সঠিক ভাবেই ব্যবহার করছি। এ কাজের তদারকি কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা উপজেলা এলজিইডির উপসহকারী প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম মুন্সি বলেন, এখনও ঢালাইয়ের কাজ শুরু হয়নি। (সড়কের দুই পাশে ব্যবহারের জন্য) ব্লক নির্মাণ করা হচ্ছে। সেখানে অনিয়মের কোনো সুযোগ নেই। যদি কোন অনিয়ম হয় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।

আরও পড়ুনঃ  নেত্রকোনার সর্বোচ্চ করোনা রোগীর সংখ্যা কেন্দুয়ায়, ৮৫জন

আনন্দবাজার/শাহী/মোবারক

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন