সোমবার, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাজেটে তরুণদের স্বাস্থ্যঝুঁকি উপেক্ষা

বাজেটে তরুণদের স্বাস্থ্যঝুঁকি উপেক্ষা
  • তামাকে করারোপ না করার প্রতিবাদে ১৮ সংগঠন

প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে তামাকজাত দ্রব্যে কার্যকর করারোপ না করার প্রতিবাদে গতকাল মঙ্গলবার তামাকবিরোধী ১৮টি সংগঠন জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছে। এসময় অংশগ্রহণকারীরা সকল প্রকার তামাকজাত দ্রব্যের ওপর সম্পূরক শুল্ক বৃদ্ধি, সুনির্দিষ্ট করারোপ, সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধি এবং জনস্বাস্থ্য রক্ষার দাবিতে প্রস্তাবিত বাজেট পুনর্বিবেচনার আহ্বান জানান।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে করহার অপরিবর্তিত রেখে নিম্ন, মধ্যম, উচ্চ এবং প্রিমিয়াম স্তর অর্থাৎ ৪টি স্তরেই সিগারেটের দাম বাড়ানো হলেও তা জনস্বাস্থ্য রক্ষার কোনোরূপ প্রভাব ফেলবে না। নিম্নস্তরে প্রতি ১০ শলাকা সিগারেটের দাম মাত্র ১ টাকা বাড়িয়ে ৪০ টাকা করা হয়েছে যা শতকরা হিসাবে বেড়েছে ২.৫৬ শতাংশ, মধ্যমস্তরে প্রতি ১০ শলাকা সিগারেটের দাম ২ টাকা বাড়িয়ে ৬৫ টাকা করা হয়েছে যা শতকরা হিসাবে বেড়েছে ৩.১৭ শতাংশ, উচ্চস্তরে প্রতি ১০ শলাকা সিগারেটের দাম ৯ টাকা বাড়িয়ে ১১১ টাকা করা হয়েছে যা শতকরা হিসাবে বেড়েছে ৮.৮২ শতাংশ। প্রিমিয়াম স্তরে প্রতি ১০ শলাকা সিগারেটের দাম ৭ টাকা বাড়িয়ে ১৪২ টাকা করা হয়েছে যা শতকরা হিসাবে বেড়েছে ৫.১৮ শতাংশ হারে। 

বর্তমানে সিগারেট বাজারের ৭৫ শতাংশই নিম্নস্তরের দখলে যার প্রধান ভোক্তা মূলত দরিদ্র ও তরুণ জনগোষ্ঠী। প্রস্তাবিত বাজেটে এই বিপুল পরিমাণ জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যঝুঁকিকে উপেক্ষা করা হয়েছে। প্রস্তাবিত বাজেটে নিম্নস্তরে সিগারেটের দাম বেড়েছে মাত্র ২.৫৬ শতাংশ (প্রতি শলাকা ১০ পয়সা মাত্র)। অন্যদিকে মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির হার ধরা হয়েছে ১০ শতাংশ এবং মূল্যস্ফীতি ৫.৬ শতাংশ। অতএব দেখা যাচ্ছে যে মাথাপিছু আয়বৃদ্ধি এবং মূল্যস্ফীতি বিবেচনায় প্রকৃত অর্থে সিগারেটের দাম বিগত বছরের তুলনায় কমে গেছে। সঠিকভাবে কর ও মূল্য বৃদ্ধির মাধ্যমে দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে ধূমপানে নিরুৎসাহিত করা ও জনস্বাস্থ্য রক্ষার একটি কার্যকর ও পরীক্ষিত কৌশল হওয়া সত্ত্বেও প্রস্তাবিত বাজেট সে লক্ষ্য অর্জনে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে, যা অত্যন্ত হতাশাব্যঞ্জক। এই মূল্য পদক্ষেপ দরিদ্র ও তরুণ জনগোষ্ঠীকে কোনোভাবেই সিগারেটে নিরুৎসাহিত করবে না। বরং সস্তা সিগারেটের ব্যবহার আশংকাজনক হারে বেড়ে যাবে। এবং তাদের স্বাস্থ্যঝুঁকি আরো বহুগুণে বাড়বে।

আরও পড়ুনঃ  জয়পুরহাটে দরিদ্র শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ

অন্যদিকে সম্পূরক শুল্ক ৫৭ শতাংশ অপরিবর্তিত রেখে কেবল খুচরা মূল্য বাড়ানোর কারণে বর্ধিত মূল্যের একটা অংশ কোম্পানির পকেটে চলে যাবে। ফলে বরাবরের মতোই বহুজাতিক তামাক কোম্পানিগুলোর কোনো প্রকার অতিরিক্ত বিনিয়োগ ও উৎপাদন ব্যয় ছাড়াই এবারের বাজেটে ব্যাপকভাবে লাভবান হওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। এজন্য ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে পুনর্বিবেচনার জন্য তামাক-কর ও দাম বৃদ্ধির কিছু সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা মানববন্ধন থেকে দেয়া হয়।

সেগুলো হলো- ১। সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা, ২। অভিন্ন করভারসহ সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক প্রচলন করা, ৩। ফিল্টারবিহীন ২৫ শলাকা বিড়ির খুচরা মূল্য ২৫ টাকা নির্ধারণ করে ১১.২৫ টাকা সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক আরোপ ও ফিল্টারযুক্ত ২০ শলাকা বিড়ির খুচরা মূল্য ২০ টাকা নির্ধারণ করে ৯.০০ টাকা সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা। ৪। নিম্ন স্তরের জর্দা এবং গুলের কর ও দাম বৃদ্ধিসহ সুনির্দিষ্ট এক্সাইজ শুল্ক প্রচলন করা।

এসময় বলা হয়, এই প্রস্তাবগুলো কার্যকর হলে-

১। প্রায় ৯ লক্ষ তরুণকে তামাক ব্যবহার থেকে বিরত করা যাবে এবং প্রায় সাড়ে ৪ লক্ষ তরুণ অকাল মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পাবে। প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ অর্জনে এটি খুবই সহায়ক হবে।

২। বাড়তি ৯,২০০ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করা যাবে। এসডিজির টার্গেট ৩.৪ অর্জনে- ‘২০৩০ সালের মধ্যে অসংক্রামক রোগে মৃত্যু এক-তৃতীয়াংশে নামিয়ে আনার জন্য’ এই বাড়তি রাজস্ব ব্যয় করা যাবে।

৩। নিম্ন স্তরের সিগারেটের মূল্য বেশি বাড়ালে নিম্ন আয়ের সিগারেট ব্যবহারকারিদের সুরক্ষা করা যাবে। তাঁদের আয়ের প্রায় ২১ শতাংশ ব্যয় হয় তামাক পণ্যের পেছনে। এই অর্থ তামাক পণ্যের পরিবর্তে শিক্ষায় ব্যয় করলে তাঁদের সন্তানদের পড়ালেখার মোট ব্যয় ১১ শতাংশ বাড়ানো সম্ভব হবে।

আরও পড়ুনঃ  পঞ্চগড়ে বইছে শৈত্যপ্রবাহ

ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের প্রোগ্রাম অফিসার শারমিন আক্তার রিনির সঞ্চালনায় মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করা তামাকবিরোধী প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- বাংলাদেশ সেন্টার ফর কমুনিকেশন প্রোগ্রাম (বিসিসিপি), এইড ফাউন্ডেশন, ব্যুরো অব ইকোনমিক রিসার্চ (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়), ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন, ডেভলপমেন্ট অ্যাকটিভিস অব সোসাইটি (ডাস), ডেভলপমেন্ট অর্গানাইজেশন অব দ্য রুরাল পুয়র (ডরপ), গ্রাম বাংলা উন্নয়ন কমিটি, মানস, ন্যাশনাল এন্টি টিউবারকিউলোসিস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (নাটাব), ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন, প্রগতির জন্য জ্ঞান (প্রজ্ঞা), স্বাস্থ্য সুরক্ষা ফাউন্ডেশন, টোব্যাকো কন্ট্রোল রিসার্চ সেল (টিসিআরসি), তামাক বিরোধী নারী জোট (তাবিনাজ), উন্নয়ন সমন্বয়, ভয়েস, ওয়ার্ক ফর বেটার বাংলাদেশ (ডব্লিউবিবি ট্রাস্ট) ও প্রত্যাশা মাদক বিরোধী সংগঠন।

ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের স্বাস্থ্য সেক্টরের উপ-পরিচালক মোঃ মোখলেছুর রহমানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন মো. আবদুস সালাম (সিটিএফকে-বাংলাদেশ), হেলাল উদ্দিন (প্রত্যাশা), সাাগুফতা সুলতানা (এইড ফাউন্ডেশন), এ কে এম খলিল উল্লাহ (নাটাব), রোকেয়া বেগম (তাবিনাজ), রুবিনা ইসলাম (ডরপ), সৈয়দা অনন্যা রহমান (ডব্লিউবিবি ট্রাস্ট), মো. মাসুদুল হাসান (উন্নয়ন সমন্বয়), মেহেদী হাসান (প্রজ্ঞা), ইব্রাহিম খলিল (বিএনটিটিপি), মাহামুদুল হাসান (ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন), আবু রায়হান (মানস) সহ আরো অনেকে।

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন