শনিবার, ১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

৩৪৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ে একনেকে ৭ প্রকল্প অনুমোদন

সম্প্রতি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ৩ হাজার ৪৬৮ কোটি ৬৬ লাখ টাকা ব্যয়ে সাতটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তবে এর মধ্যে সরকার দেবে ২ হাজার ৬২৬ কোটি ৪৮ লাখ টাকা, বিদেশি ঋণ ৫৮১ কোটি ২০ লাখ এবং বিশ্ব ব্যাংকের অনুদান ২৬০ কোটি ৯৮ লাখ টাকা।

জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে একনেক সভা অনুষ্ঠিত হয়। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গণভবনের সাথে প্রধানমন্ত্রী এবং পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান একনেক সভায় অংশ নেন। ঢাকার শেরেবাংলা নগরে অবস্থিত এনইসি সম্মেলন কক্ষ থেকে একনেক সভায় অংশ নেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী এবং সচিবরা।

একনেক সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান অনলাইন সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সাংবাদিকদের বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন। অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর তথ্য তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর মধ্যে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের তিনটি প্রকল্প রয়েছে। তার মধ্যে ‘বারৈয়ারহাট-হেঁয়াকো-রামগড় সড়ক প্রশস্তকরণ’ প্রকল্পটি ৮৪৮ কোটি ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে এ বছরের জানুয়ারি থেকে ২০২২ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

এই প্রকল্পটিতে সরকার দেবে ২৬৭ কোটি ১২ লাখ এবং ভারতীয় ঋণ ৫৮১ কোটি ২০ লাখ টাকা। ‘দাউদকান্দি-গোয়ালমারী-শ্রীরায়েরচর (কুমিল্লা)-মতলব উত্তর (ছেঙ্গারচর) জেলা মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ’ প্রকল্পে খরচ হবে ৫২৪ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। প্রকল্পটি এ বছরের জুলাই থেকে ২০২৩ সালের জুন সময়ে বাস্তবায়ন করা হবে। ‘খুলনা সড়ক জোনের আওতাধীন মহাসড়কে বিদ্যমান সরু এবং নতুন কংক্রিট সেতু নির্মাণ’ প্রকল্পটি ৫৩০ কোটি টাকা খরচ ব্যয় করবে সরকার। এই প্রকল্পটি চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

আরও পড়ুনঃ  লাইটারেজ জাহাজের অবাধে সাগরপাড়ি

অপরদিকে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দুটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে ‘তেঁতুলিয়া নদীর ভাঙন থেকে পটুয়াখালী জেলাধীন বাউফল উপজেলার ধুলিয়া লঞ্চঘাট থেকে বরিশাল জেলাধীন বাকেরগঞ্জ উপজেলার দুর্গাপাশা রক্ষা’ প্রকল্পে ব্যয় হবে ৭১২ কোটি ১২ লাখ টাকা। এর মধ্যে চলতি বছরের জুলাই থেকে ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়ন করা হবে। ‘কপোতাক্ষ নদের জলাবদ্ধতা দূরীকরণ (দ্বিতীয় পর্যায়)’ প্রকল্পটিতে খরচ হবে ৫৩১ কোটি ৭ লাখ টাকা। সরকারি অর্থায়নে প্রকল্পটি ২০২০ সালের জুলাই থেকে ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে বাস্তবায়ন করা হবে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ‘গভীর সমুদ্রে টুনা ও সমজাতীয় পেলাজিক মাছ আহরণে পাইলট’ প্রকল্পে খরচ হবে ৬১ কোটি টাকা। প্রকল্পটি চলতি বছরের জুলাই থেকে ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা এবং ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের ‘ইমার্জেন্সি মাল্টি-সেক্টর রোহিঙ্গা ক্রাইসিস রেসপন্স প্রজেক্ট (প্রথম সংশোধন)’ প্রকল্পটি ২৬১ কোটি ৩১ লাখ টাকা খরচে বাস্তবায়ন করা হবে।

আনন্দবাজার/এইচ এস কে

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন