মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দৈনিক ১২শ’ লিটার সুগন্ধি দিয়ে ধোয়া হয় কাবা শরিফ

দৈনিক-১২শ-লিটার-সুগন্ধি-দিয়ে-ধোয়া-হয়-কাবা-শরিফ

সৌদিতে করোনার কারণে দীর্ঘ সাড়ে সাত মাস ওমরাহ বন্ধ থাকার পর গত ৪ অক্টোবর থেকে প্রথম ধাপে সীমিত আকারে আবার ওমরাহ শুরু হয়েছে। তাই ইতোমধ্যে মুসল্লিদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও নিরাপত্তার জন্য বিশেষ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আর এ কাজে নিয়োজিত রয়েছে প্রতিদিন ৪ হাজার পরিচ্ছন্নতা কর্মী। ফলে প্রতিদিন স্প্রে করা হয় এক হাজার ২০০ লিটার আতর।

জানা গেছে, বর্তমানে পবিত্র কাবা শরিফে চলছে ২য় ধাপে ওমরাহ পালন। এ ধাপে ওমরাহকারীদের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

হারামাইন ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, মসজিদে হারামে ওমরাহ আদায়ের লক্ষ্যে আসন্ন মুসল্লিদের আনাগোনা বাড়ায় এখানের পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের সংখ্যাও বৃদ্ধি করা হয়েছে।

বিবৃতিতে আরও জানানো হয়, মসজিদুল হারামের অভ্যন্তর, বহিরাংশ ও মাতআফসহ পুরো এলাকা পরিচ্ছন্নতায় এবং সুগন্ধি ছিটানোর কাজে ৪ হাজার কর্মী নিয়োজিত রয়েছে। তবে পুরুষের পাশাপাশি নারী পরিচ্ছন্নতাকর্মীও রয়েছেন। বিশাল কর্মী বাহিনী পরিচালনায় ১৮০ জন সুপারভাইজার তদারকির কাজ করে যাচ্ছেন।

মুসুল্লিদের সুবিধার জন্য সুপারভাইজারদের দক্ষ পরিচালনায় তিন শিফটে ভাগ করে ২৪ ঘণ্টা এ সেবা অব্যাহত রাখা হয়েছে। প্রতিদিন কাবা শরিফ তথা পুরো মসজিদে হারাম এলাকা রাতদিন মিলিয়ে ১০ বার পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়।

আরও জানা গেছে, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার এ কাজে ডিজিটাল মেশিনে পরিবেশবান্ধব, স্বাস্থ্যসম্মত উন্নত প্রযুক্তির ডিটারজেন্ট এবং জীবাণুনাশকও ব্যবহার করা হয়। সুন্দর পরিবেশ বজায় রাখতে প্রতিদিন নানা দামি ব্র্যান্ডের নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি পবিত্র সুগন্ধি ছিটানো হয়।

উল্লেখ্য, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমের পরিচালক জাবের ওদাআনি বলেন, পুরো মসজিদে হারাম এলাকা ছাড়াও পবিত্র কাবা শরিফ, মাতআফ, মুলতাজেম, রোকনে ইয়ামেনি, হাতিমে কাবা, হাজরে আসওয়াদ, মাকামে ইবরাহিম, সাফা-মারওয়া পাহাড় সবসময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অব্যাহত রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ  খাদ্যেমূল্যে ছয় দশকের রেকর্ড

আনন্দবাজার/এইচ এস কে

Print Friendly, PDF & Email

সংবাদটি শেয়ার করুন