মে ২১, ২০২২

ব্যাংকিং খাতে আশার আলো

ব্যাংক খাতের নানা সংবাদ আজকের দৈনিক আনন্দবাজারে প্রকাশিত হয়েছে। তিনটি শিরোনামে সংবাদগুলো এসেছে তা ব্যাংক খাতের পুরো চিত্র না হলেও অধিকাংশ চিত্রই ফুটে উঠেছে।

ব্যাংক খাতের নানা সংবাদ আজকের দৈনিক আনন্দবাজারে প্রকাশিত হয়েছে। তিনটি শিরোনামে সংবাদগুলো এসেছে তা ব্যাংক খাতের পুরো চিত্র না হলেও অধিকাংশ চিত্রই ফুটে উঠেছে। যা থেকে দেশের অর্থনীতির কী হাল তা সহজেই অনুমান করার সুযোগ মিলেছে। করোনা মহামারি সার্বিকভাবেই দেশের অর্থনীতিকে পর্যুদস্ত করেছে- এটা সাধারণ একটা ধারণা। তবে এই মহামারি আমাদের দেশের অর্থনীতিতে আসলে কতটা প্রভাব ফেলেছে তা ব্যাংক খাতের নানা বিষয় খতিয়ে না দেখলে আঁচ করা যায় না।

আশার সংবাদ দিয়েছে দৈনিক আনন্দবাজার। মহামারির মধ্যেও সম্পদ বেড়েছে ৯৪ ভাগ ব্যাংকের। ব্যাংক সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের আর্থিক প্রতিবেদন যদি সত্য হয় তবে এর চেয়ে ভালো সংবাদ আর কিছু হতে পারে না। যেসব ব্যাংক এই মহামারিকালেও দোর্দণ্ড প্রতাপে ব্যবসা চালিয়ে সম্পদের পরিমাণ বাড়িয়েছে তাদের ধন্যবাদ জানাতেই হয়। বিশেষ করে যখন দেশের ব্যাংকখাত নিয়ে নানামুখী তেতো কথা বাজারে আছে, ঠিক সে সময়ে এ ধরণের সংবাদ আশার আলো দেখায়। প্রশংসার দাবি রাখে।

দৈনিক আনন্দবাজারের অপর একটি সংবাদে বলা হয়েছে, ব্যাংকখাতে ঋণ বেড়েছে সরকারের। যা ভীতির কারণ। যদিও সরকারের নেয়া মেগা প্রকল্পের কারণে ব্যয় বৃদ্ধি পাওয়ায় এই ঋণের পরিমাণ বেড়েছে। তারপরও সরকারের এই ঋণের কারণে ব্যাংকখাতের অবস্থা নাজুক হতে পারে বলে এই বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা মনে করেন। যা অর্থনীতির জন্য ইতিবাচক নয়। ফলে এই ঋণের বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগকে সতর্ক থাকতে হবে।
অপর একটি সংবাদে জানা গেছে, কঠোর নিয়মে আসছে বাণিজ্যিক ব্যাংক। এটি একটি ভালো সংবাদ। যা ব্যাংকখাতের প্রতি মানুষের আস্থা আরও বাড়াবে। এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যেসব পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তা প্রশংসার দাবি রাখে। তবে এসব পদক্ষেপের প্রতিফলন যদি ইতিবাচক না হয় তবে মানুষের ধারণা খারাপ হবে। বিশেষ করে ইতিপূর্বে এ ধরনের পদক্ষেপ নেয়া সত্ত্বেও তা কার্যকরী করতে না পারায় ব্যাংক খাত নিয়ে জনমনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। ব্যাংকিংখাত বিশেষ করে বাণিজ্যিক ব্যাংক নিয়ে জনমনের নেতিবাচক অবস্থা কাটিয়ে উঠতে পদক্ষেপ নিতে হবে। জনমনে আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে। যা ব্যাংকিং খাতকে আরও শক্তিশালী করবে। অর্থনীতির ভিত আরও শক্তিশালী হবে।

আরও পড়ুনঃ  বেতন বাস্তবায়নে বাড়লো সময়

দেশের সার্বিক উন্নয়নে ব্যাংকিং খাতের গুরুত্ব অপরিসীম। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, এই খাত নিয়ে জনমনে যথেষ্ট বিভ্রান্তি ও নেতিবাচক ধারণা বিদ্যমান। যা ক্রমেই এ খাতকে পশ্চাৎপদ করেছে। যদিও বাংলাদেশে ব্যাংকের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। কিন্তু ব্যাংকিংখাত নিয়ে মানুষের ইতিবাচক ধারণা বাড়ছে না। যার ফলে নামমাত্র কয়েকটি ব্যাংক ছাড়া অধিকাংশ ব্যাংকের অবস্থা নাজুক বলেই সাধারণ মানুষের ধারণা। এ অবস্থায় দৈনিক আনন্দবাজার যে তিনটি সংবাদ প্রকাশ করেছে তাতে ব্যাংকিংখাতের ভিন্ন চিত্র ফুটে উঠেছে। নিঃসন্দেহে এই সংবাদ থেকে ব্যাংকিং খাত সম্পর্কে সাধারণে যে নেতিবাচক ধারণা তা পাল্টাতে সহায়ক হবে।
তবে একথাও সত্য যে কিছু কিছু ব্যাংকের অনিয়ম, দুর্নীতি বিশেষ করে ঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে নানা অনিয়ম, পরিচালকদের অনিয়ম বিভিন্ন সময়ে ঘটেছে। যার ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যেসব পদক্ষেপ কার্যকরী হলে ব্যাংকিং খাতে অরাজক পরিস্থিতি বন্ধ হবে। জনমনে আস্থা ফিরে আসবে। দেশের অর্থনীতিতে ব্যাংকিং খাত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। যা প্রত্যাশিত।

আনন্দবাজার/শহক

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.

ই-পেপার
প্রথম পাতা
খবর
অর্থ-বাণিজ্য
শেয়ার বাজার
মতামত
বিশ্ব বাণিজ্য
ক্যারিয়ার
খেলার মাঠ
প্রযুক্তি বাজার
শিল্পাঞ্চল
পণ্যবাজার
সারাদেশ
শেষ পাতা