নভেম্বর ২৮, ২০২১

বেতাগীতে আমনের ভালো ফলন

বেতাগীতে আমনের ভালো ফলন

উপকূলীয় জনপদ বরগুনার বেতাগী উপজেলায় এবার আমন ধানের ভালো ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। চলতি মৌসুমে আমন ধানের চারা রোপনের পর থেকেই হালকা ও মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় অধিক ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষকরা।

জানা গেছে, উপজেলার পৌরসভাসহ ৭টি ইউনিয়নে ১১০০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের চাষাবাদ হয়েছে। সম্ভাব্য উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪০ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন। বিগত বছরগুলোতে মাজরা পোকা, নলি মাছি, পাতা মাছি, পামরী পোকা, চুংগী পোকা, পাতা মোড়ানো পোকা, লেদা পোকা, বাদামী ঘাস ফড়িং, গান্ধি পোকা, ছাতরা পোকাসহ বিভিন্ন ক্ষতিকারক পোকামাকড় থাকলেও চলতি মৌসুমে তা এখন পর্যন্ত ফসলের ক্ষেতে দেখা যায় নি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আমন ফসলের মাঠ জুড়ে সবুজ সমাহর। চারিদিকে যেন সবুজের ছোয়া। আর ১০-১৫ দিনের মধ্যে সবুজ বেষ্টনি সোনালী ধানে ভরে যাবে। ইতোমধ্যে আমনের আগামজাত ধান গাছগুলোতে শষ্যে পরিপূর্ণ হয়েছে। আগামী ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে ধান কাটতে শুরু করবে কৃষকরা। এসময় ধান কাটা, মাড়াই করা, সিদ্ধ করা, রোদে শুকানো ও ধান ভাঙানো কাজসহ ব্যস্ত সময় পার করবে কৃষকরা। তবে একাধিক কৃষক জানিয়েছে, এবারে ভালো ফলনে মনে আনন্দে ভরে গেছে।

উপজেলার বুড়ামজুমদার ইউনিয়নের কৃষক আলমগীর হোসেন বলেন, এ বছর উপকূলীয় আঞ্চলে পানি বৃদ্ধি পাওয়ার কারনে আমাদের বীজতলার ৩০-৫০% বীজ নষ্ট হয়ে গেছে। আমরা অন্য উপজেলা থেকে বীজ ক্রয় করে গাড়িতে আনতে আমাদের খরচ বেড়ে গেছে। ফসলের ভালো দাম পেলে আমরা অবশ্যই লাভবান হবো।

উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়নের কৃষক আব্দুল কাদের হাওলাদার বলেন, এবার আমনের ফলন ভালো দেখে সত্যি আনন্দে প্রাণ ভরে গেছে। এখন সঠিক সময় ফসল ঘরে তুলতে পারলেই কৃষক পরিবারে আর কোন অভাব থাকবে না।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন বলেন, এ বছর তুলনামূলক মাঠে বিভিন্ন ক্ষতিকারক পোকা মাকড়ের আক্রমণ কম। পোকামাকড় থেকে রক্ষা পেতে এবার কৃষকদের মাঝে কীটনাশক ওষুধ বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া প্রান্তিক চাষিসহ ১ হাজার ৫০০ জনের মত চাষিকে সরকারিভাবে সার ও বীজ বিতরণ করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এ বছর এ পর্যন্ত কোনো রোগবালাই দেখা যায়নি। ফলন ঘরে তোলার বাকী সময় আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এ বছর সম্ভাবনাময় আশানুরূপ ফলন পাওয়া যাবে।

আনন্দবাজার/শহক

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আজকের পত্রিকা
ই-পেপার
শেয়ার বাজার
পন্য বাজার