বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে জয়ী ড. কামরুজ্জামান-সালেহ প্যানেল

বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে জয়ী ড. কামরুজ্জামান-সালেহ প্যানেল
বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে জয়ী ড. কামরুজ্জামান-সালেহ প্যানেল

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(বশেমুরবিপ্রবি)শিক্ষক সমিতি নির্বাচন (২০২১)-এ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন (বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধিকারের চেতনায় বিশ্বাসী শিক্ষক পরিষদ) প্যানেলের শিক্ষকবৃন্দরা।

উক্ত নির্বাচনে একটি মাত্র প্যানেল মনোনয়ন ফর্ম জমা দেওয়ায় আজ ১২ জানুয়ারি সকাল ১০ টায় শিক্ষক সমিতি নির্বাচনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সহকারী অধ্যাপক মাহবুব হোসেন বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধিকার চেতনায় বিশ্বাসী শিক্ষক পরিষদ প্যানেলকে জয়ী ঘোষণা করেন।

নির্বাচনে সভাপতি পদে এসিসিই বিভাগের ড. মোঃ কামরুজ্জামান ও সাধারন সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন বিলওয়াবস এর ড. মো: আবু সালেহ।

এছাড়াও সহ-সভাপতি পদে ফার্মেসি বিভাগের আবুল বাশার রিপন খলিফা কোষাধ্যক্ষ পদে মার্কেটিং বিভাগের মোঃ হাফিজুর রহমান যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শামসুল আরেফীন ও প্রচার সম্পাদক হিসেবে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সাদ্দাম হোসেন নির্বাচিত হয়েছেন। সদস্য পদে আরও নির্বাচিত হয়েছেন, পরিবেশ বিজ্ঞান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের ড. মোঃ রাশেদুজ্জামান পবিত্র, ইংরেজি বিভাগের মাহবুব আলম, পরিসংখ্যান বিভাগের মোঃ মাইদুল হোসেন, এলভিএম বিভাগের মো: শরিফুজ্জামান, রসায়ন বিভাগের জনাব দিলরুবা আফরোজ পপি, অর্থনীতি বিভাগের গাজী মোহাম্মদ মাহবুব, কৃষি বিভাগের দুইজন যথাক্রমে অভিজিৎ বিশ্বাস ও ইনজামাম-উল -হক এবং লোকপ্রশাসন বিভাগের মোঃ নাসির উদ্দিন।

নবনির্বাচিত শিক্ষক সমিতির (বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধিকারের চেতনায় বিশ্বাসী শিক্ষক পরিষদ) সাধারণ সম্পাদক ড. মোঃ আবু সালেহ-র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমরা শিক্ষক সমিতির বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রতিনিধিত্ব করি। আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, প্রশাসন এবং সাধারণ শিক্ষকদের মাঝে সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করব। এক্ষেত্রে শিক্ষার গুনগত মান অক্ষুণ্ণ রেখে শিক্ষা ও গবেষণার মাধ্যমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামাঙ্কিত এই বিশ্ববিদ্যালয়টিকে দেশের শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠে পরিণত করার লক্ষ্যে কাজ করতে সকল শিক্ষকদের প্রতি আহবান জানাই। ভারতের জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় যেমন দক্ষিণ এশিয়ার সেরা, ঠিক সেরকম আমাদের এই বিশ্ববিদ্যালয়টি সসমপর্যায়ে উন্নিত হোক সেই প্রত্যাশাই করি।

শিক্ষকদের অধিকার আদায়ের বিষয়ে চিন্তা ভাবনা এবং পদক্ষেপ গ্রহণের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, শিক্ষকদের পদোন্নতির বিষয়ে আন্দোলনের অংশ হিসেবে শহীদ মিনারে অবস্থানসহ একাধিক কর্মসূচি পালন করেছি। বর্তমানে এ বিষয়ে মাননীয় উপাচার্য মহাদয় অবগত হয়েছেন এবং সমস্যা সমাধানের বিষয়ে আশ্বাস দিয়েছেন। ইতিমধ্যে আমাদের সমস্যা নিরসনের লক্ষ্যে বোর্ড গঠন করা হয়েছে। আমরা এই বোর্ডের ফলাফল এর উপর আশাবাদী।

আনন্দবাজার/শাহী/আকীক

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *