ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৩

প্রাথমিকে নিয়োগ পেতে ৮০ প্রতিবন্ধী চাকরিপ্রার্থী হাইকোর্টে

প্রাথমিকে নিয়োগ পেতে ৮০ প্রতিবন্ধী চাকরিপ্রার্থী হাইকোর্টে

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে প্রতিবন্ধী কোটার ভিত্তিতে নিয়োগের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করতে যাচ্ছেন দেশের বিভিন্ন জেলার ৮০ জন শারীরিক প্রতিবন্ধী চাকরিপ্রার্থী।

রিট আবেদনে সম্প্রতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩৭ হাজার ৫৭৪ জনকে নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী কোটা থেকে নিয়োগ না দেওয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করা হবে। ৮০ জন শারীরিক প্রতিবন্ধীর পক্ষে অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া রিটটি দায়ের করবেন।

মঙ্গলবার (৩ জানুয়ারি) অ্যাডভোকেট ছিদ্দিক উল্লাহ বলেন, কোটার ভিত্তিতে ৮০ জন শারীরিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে নিয়োগ দেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে রিট আবেদন প্রস্তুত করেছি। রিটকারীরা সবাই শারীরিক প্রতিবন্ধী। তারা আর্থিকভাবেও অসচ্ছল। তাই তাদের পক্ষে বিনা পয়সায় রিট মামলা পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

তিনি বলেন, গত ১৪ ডিসেম্বর দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের লক্ষ্যে ৩৭ হাজার ৫৭৪ জনকে উত্তীর্ণ করে চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এই নিয়োগে নারী কোটা, পোষ্য কোটা, মুক্তিযোদ্ধা কোটা অনুসরণ করা হয়েছে। অথচ প্রতিবন্ধী কোটায় কাউকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। আমি মনে করি, প্রতিবন্ধী কোটায় নিয়োগ না দেওয়ায় সংবিধান লঙ্ঘন করা হয়েছে।

এ কারণে গাইবান্ধার মাহবুব শেখ, রংপুরের আবু জাহিদ, বাগেরহাটের পার্থ প্রতিম, নরসিংদীর পারুল বেগমসহ ৮০ জন শারীরিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তির পক্ষে রিট আবেদন প্রস্তুত করেছি।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালে প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তির অনুমোদিত পদ অনুসারে ৩২ হাজার ৫৭৭ পদে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার কথা থাকলেও এটি বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। চলতি বছরের মার্চে মন্ত্রণালয়ের এক সভায় সাংবাদিকদের বলা হয়েছিল, ৪৫ হাজার সহকারী শিক্ষক নেওয়া হবে। অবসরের কারণে ১০ হাজারের বেশি পদ খালি হওয়ায় পদ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। ফলে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা শেষে চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশের আগে পদসংখ্যা বৃদ্ধি নিয়ে সংশয় তৈরি হয়। পদ বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলন করেন চাকরিপ্রার্থীরা। চলমান নিয়োগ প্রক্রিয়ায় সর্বোচ্চ সংখ্যক শূন্যপদে নিয়োগ এবং পদসংখ্যা বাড়ানোর দাবিতে ৬১ জেলায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে স্মারকলিপিও দেন চাকরিপ্রার্থীরা। গত ২৮ নভেম্বর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছিল, প্রকৃত শূন্যপদ যাচাই-বাছাই শেষে ১৪ ডিসেম্বর চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে। পরে বিজ্ঞপ্তির অনুমোদিত পদের সঙ্গে পাঁচ হাজার পদ বাড়ানো হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ  ‘জনগণের সার্বিক কল্যাণের জন্য টেকসই উন্নয়ন প্রয়োজন’

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রমের ইতিহাসে এটিই এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি। ২০২০ সালের ২৫ অক্টোবর অনলাইনে আবেদন শুরু হয়। আবেদন করেন ১৩ লাখ ৯ হাজার ৪৬১ প্রার্থী। নিয়োগে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা তিন ধাপে নেওয়া হলেও চূড়ান্ত ফলাফল একবারেই প্রকাশ করা হয়েছে। প্রথম ধাপের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন ৪০ হাজার ৮৬২ জন, দ্বিতীয় ধাপে ৫৩ হাজার ৫৯৫ এবং তৃতীয় ধাপে ৫৭ হাজার ৩৬৮ জন।

আনন্দবাজার/কআ

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ই-পেপার
প্রথম পাতা
খবর
অর্থ-বাণিজ্য
শেয়ার বাজার
মতামত
বিশ্ব বাণিজ্য
ক্যারিয়ার
খেলার মাঠ
প্রযুক্তি বাজার
শিল্পাঞ্চল
পণ্যবাজার
সারাদেশ
শেষ পাতা