ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২৩

পিঁপড়া খেয়ে ক্যানসার নিয়ন্ত্রণ

বিশ্বের জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে চাষাবাদের উপযোগী জমিও কমছে। ফলে মানুষের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সরবরাহ ক্রমশ কঠিন হয়ে পড়ছে। এই চাপ কমাতে অনেকে কীটপতঙ্গ খাওয়ার কথা ভাবছেন। জাপান, অস্ট্রেলিয়া, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ডসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বিকল্প খাবার হিসেবে কীটপতঙ্গ ব্যবহারকে উৎসাহিত করছেন পরিবেশবিদ ও গবেষকরা।

এবার ইতালির একদল গবেষক শোনালেন কীটপতঙ্গের ঔষধি গুণের কথা। তাদের আশা, শিগগিরই ক্যানসার প্রতিরোধে পিঁপড়াসহ অন্যান্য কীটপতঙ্গ খাওয়ার পরামর্শ দিতে শুরু করবেন চিকিৎসকরা।

ইতালির ওই গবেষকরা কয়েকটি ধারাবাহিক গবেষণায় দেখেছেন, পিঁপড়া ও ঘাসফড়িং জাতীয় কীটপতঙ্গে উচ্চমাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে। যা মানবদেহের অভ্যন্তরে নানা রাসায়নিক বিক্রিয়ায় সৃষ্ট ক্ষতিকর উপাদানগুলো নিয়ন্ত্রণে বিশেষ ভূমিকা রাখে। এই ক্ষতিকার রাসায়নিকগুলো আবার ক্যানসার, ডায়াবেটিস ও হৃদরোগ সৃষ্টির জন্য দায়ী।

সম্প্রতি ফ্রন্টিয়ার ইন নিউট্রিশন সাময়িকীতে এই সংক্রান্ত গবেষণা নিবন্ধটি প্রকাশিত হয়েছে।

সাধারণত আমরা প্রতিদিন যেসব খাবার খাই তাতে কিছু না কিছু পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। তবে রোম বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই গবেষকরা দেখেছেন, কমলার রস বা অলিভ অয়েলের চেয়ে কমপক্ষে পাঁচগুণ বেশি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে ঝিঁঝিঁ পোকা বা পিঁপড়ার শরীরে। শুধু তাই নয়, এদের শরীরে থাকা পলিফেনল অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের কার্যকারিতা বাড়িয়ে দেয় বহুগুণ।

গবেষক দলের প্রধান অধ্যাপক মাওরো সেরাফিনি বলেন, পৃথিবীর প্রায় ২০০ কোটি মানুষ কোনো না কোনোভাবে নিয়মিতই কীটপতঙ্গ খাচ্ছেন। বাকিদেরও এই খাবারটিতে নিয়মিত অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। কারণ এগুলো আমিষ, ফ্যাটি অ্যাসিড, ভিটামিন ও ফাইবারের সবচেয়ে ভালো উৎস। কিন্তু এতদিন অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের অন্য উৎসগুলোর সঙ্গে এর তুলনামূলক কোনো বিশ্লেষণ হয়নি। তবে অদূর ভবিষ্যতে খাবারের তালিকায় কীটপতঙ্গ রাখার বিষয়ে আমরা আশাবাদী।

আরও পড়ুনঃ  পণ্য পরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি ব্যবসায়ীদের

তিনি জানান, গবেষণায় দেখা গেছে, যে সব কীটপতঙ্গ নিজে নিরামিষভোজী তাদের শরীরের অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের পরিমাণ তুলনামূলক অনেক বেশি। যা ক্যানসারের বিরুদ্ধে শক্তিশালী লড়াই করতে পারে। তার আশা, অদূর ভবিষ্যতে চিকিৎসকরা ক্যানসার রোগীদের নিয়মিত পিঁপড়া বা ঘাসফড়িংয়ের মতো কীটপতঙ্গ খাওয়ার পরামর্শ দেবেন।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ই-পেপার
প্রথম পাতা
খবর
অর্থ-বাণিজ্য
শেয়ার বাজার
মতামত
বিশ্ব বাণিজ্য
ক্যারিয়ার
খেলার মাঠ
প্রযুক্তি বাজার
শিল্পাঞ্চল
পণ্যবাজার
সারাদেশ
শেষ পাতা