ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২৩

নিয়ন্ত্রণহীন সবজির দাম, স্বস্তি নেই ক্রেতাদের

রাজধানীর বাজারগুলোতে বেড়েছে সব ধরনের সবজির দাম। পটল আর পেঁপে বাদে প্রায় সব ধরনের সবজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকার ওপরে। বাজারে নিয়ন্ত্রণহীন পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় স্বস্তি নেই ক্রেতাদের মনে।

আজ শুক্রবার রাজধানীর মিরপুর, শেওড়াপাড়া, কল্যাণপুর ও কাওরান বাজার ঘুরে দেখা যায় যে, প্রায় প্রতিটি সবজির দাম গত সপ্তাহের থেকে কম করে হলেও ১০ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে।

শেওড়াপাড়া বাজারে মামুন নামে এক ক্রেতা বলেন, দুই একটি বাদে প্রায় সব সবজির দাম ৬০ টাকার ওপরে। গত এক মাসে কোন পণ্যের দাম বাড়েনি সেটা খুঁজে পাওয়াই কঠিন। এভাবে দাম বাড়লে আমরা কোথায় যাবো? পণ্যের দাম অনুযায়ী স্যালারি (বেতন) তো আর বাড়ছে না।

দাম বাড়ার বিষয়ে কল্যাণপুর কাঁচা বাজারের ব্যবসায়ী সালাম বলেন, টানা বৃষ্টিতে বেড়েছে পেঁয়াজ মরিচসহ সব ধরনের সবজির দাম। এছাড়া বন্যায় বিভিন্ন এলাকা ডুবে গেছে। তবে আগামী সপ্তাহে শাক সবজির দাম কমতে পারে বলেও জানান তিনি।

গত সপ্তাহের মত আবারও দাম বেড়ে চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে টমেটো, শসা ও গাজর। বাজার ভেদে পাকা টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে টমেটোর দাম কেজিতে বেড়েছে ৪০ টাকা। গাজার বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে গাজরের দাম কেজিতে ২০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। তবে শসা আগের সপ্তাহের মতো ৬০ থেকে ৮০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

আরও পড়ুনঃ  সাত দিনের রিমান্ডে ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামি

গত সপ্তাহে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া করলার দাম বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকায়। ঝিঙ্গা, ঢেঁড়স ও ধুন্দুলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ৪০ থেকে ৫০ টাকা। কাকরোল গত সপ্তাহের মতো ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। পটল বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ২০ থেকে ৩০ টাকা। দাম বাড়ার এ তালিকায় রয়েছে বেগুনও। গত সপ্তাহে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া বেগুনের দাম বেড়ে হয়েছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা।

অপরিবর্তিত থাকা সবজির মধ্যে পেঁপে বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি। বরবটির কেজি ৬০ থেকে ৭০ টাকা, কচুর লতি ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। লাউ বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা পিস। পাশাপাশি দাম বেড়েছে কাঁচা মরিচের। প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৬০ টাকা কেজি।

এদিকে গত সপ্তাহের থেকে কিছুটা কমে বিক্রি হচ্ছে দেশিয় আমদানি পেঁয়াজ। গত সপ্তাহে যে পেঁয়াজের কেজি ৪৫ টাকা বিক্রি হচ্ছিল, তা এখন কমে ৪০ টাকা। আর গত সপ্তাহে যে পেঁয়াজ ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছিল তা এখন বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকা। এদিকে দেশি রসুন ১১০ থেকে ১২০ টাকা ও আমদানিকৃত রসুন ১৪০ থেকে ১৬০ টাকায় বিক্রি হয়। আর প্রতি কেজি আদা বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ২০০ টাকায়।

আরও পড়ুনঃ  কক্সবাজারের কাঁকড়ার চাহিদা বিশ্ববাজারে

এদিকে মাংসের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বয়লার মুরগির আগের সপ্তাহের মতো ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। পাকিস্তানি কক মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ২৩০ টাকা কেজি। একই দামে বিক্রি হচ্ছে লাল লেয়ার মুরগি। গরুর মাংস বাজার ভেদে বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ থেকে ৫৭০ টাকা এবং খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭৫০ থেকে ৮৫০ টাকা কেজি।

Print Friendly, PDF & Email

১ মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ই-পেপার
প্রথম পাতা
খবর
অর্থ-বাণিজ্য
শেয়ার বাজার
মতামত
বিশ্ব বাণিজ্য
ক্যারিয়ার
খেলার মাঠ
প্রযুক্তি বাজার
শিল্পাঞ্চল
পণ্যবাজার
সারাদেশ
শেষ পাতা