ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২৩

ডিএসইতে গড়ে দৈনিক লেনদেন কমেছে ১.১৭ শতাংশ

গত সপ্তাহজুড়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সূচকে ছিল মিশ্র প্রবণতা। মোট লেনদেন ও দৈনিক গড় লেনদেন কমেছে ১ দশমিক ১৭ শতাংশ। কমেছে বেশিরভাগ শেয়ারদর। তবে ডিএস৩০ সূচক কমলেও বেড়েছে ডিএইএক্স ও ডিএসই শরিয়াহ সূচক ইতিবাচক ছিল। বেড়েছে বাজার মূলধন। গত সপ্তাহে পাঁচ কার্যদিবস লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে তিন দিন সূচক বেড়েছে, কমেছে দুদিন।

সাপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স এক দশমিক শূন্য এক পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য দুই শতাংশ বেড়ে চার হাজার ৭৭২ পয়েন্টে স্থির হয়। ডিএসইএস বা শরিয়াহ সূচক দুই দশমিক ৩৬ পয়েন্ট বা দশমিক ২২ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৯৬ দশমিক ৩৯ পয়েন্টে পৌঁছায়। ডিএস৩০ সূচক তিন দশমিক ৯২ পয়েন্ট বা দশমিক ২৩ শতাংশ কমে এক হাজার ৬৭৫ দশমিক ১০ পয়েন্টে স্থির হয়। মোট ৩৫৭টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৯০টির, কমেছে ২৪৪টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২১ কোম্পানির শেয়ারদর। লেনদেন হয়নি দুটির। দৈনিক গড় লেনদেন হয় ৩০৯ কোটি ১১ লাখ ১২ হাজার ৪৯১ টাকা। আগের সপ্তাহে দৈনিক গড় লেনদেন হয় ৩১২ কোটি ৭৭ লাখ ৪২ হাজার ৫৪৪ টাকা। এক সপ্তাহের ব্যবধানে দৈনিক গড় লেনদেন কমেছে তিন কোটি ৬৬ লাখ টাকা বা এক দশমিক ১৭ শতাংশ।

গেল সপ্তাহে ডিএসইতে মোট টার্নওভার বা লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় এক হাজার ৫৪৫ কোটি ৫৫ লাখ ৬২ হাজার ৪৫৩ টাকা। আগের সপ্তাহে যা ছিল এক হাজার ৫৬৩ কোটি ৮৭ লাখ ১২ হাজার ৭১৮ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে টার্নওভার কমেছে ১৮ কোটি ৩১ লাখ টাকা বা এক দশমিক ১৭ শতাংশ।

আরও পড়ুনঃ  সূচকের সাথে লেনদেন বেড়েছে ডিএসইতে

ডিএসইতে গত সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রবিবার বাজার মূলধন ছিল তিন লাখ ৫৯ হাজার ৩৩ কোটি ৭০ লাখ ৭১ হাজার টাকা। শেষ কার্যদিবসে যার পরিমাণ ছিল তিন লাখ ৬১ হাজার ৯২ কোটি ৩৩ লাখ ৬০ হাজার ৮৩৩ টাকা। সপ্তাহের ব্যবধানে বাজার মূলধন বেড়েছে দশমিক ৫৭ শতাংশ বা দুই হাজার ৫৮ কোটি টাকা।

অন্যদিকে ৩৪ দশমিক ৮৬ শতাংশ কমে সাপ্তাহিক দরপতনের শীর্ষে অবস্থান করে মুন্নু জুট স্টাফলার্স। সাফকো স্পিনিং মিলসের দর ২২ দশমিক ২২ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের দর ২১ দশমিক ৭১ শতাংশ, সিভিও পেট্রোকেমিক্যালের দর ১৭ দশমিক ১৯ শতাংশ, মিথুন নিটিংয়ের দর ১৫ শতাংশ, স্টাইল ক্রাফটের দর ১৪ দশমিক ৫৪ শতাংশ, কপারটেকের দর ১৪ দশমিক ৪০ শতাংশ, বীকন ফার্মার দর ১৪ দশমিক শূন্য চার শতাংশ, ন্যাশনাল টিউবসের দর ১৩ দশমিক ৩১ শতাংশ ও জেনারেশন নেক্সটের দর ১৩ দশমিক ১৬ শতাংশ কমেছে।

ডিএসইতে টার্নওভারের দিক থেকে শীর্ষ ১০ কোম্পানি হলো ন্যাশনাল টিউবস, গ্রামীণফোন, মুন্নু জুট স্টাফলার্স, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন, স্টান্ডার্ড সিরামিক, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্স, প্রিমিয়ার ব্যাংক, স্কয়ার ফার্মা, সিলকো ফার্মা, প্যারামাউন্ট ইন্সুরেন্স।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৩০২টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০০টির, কমেছে ১৮৩টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১৯টির দর।

 

আনন্দবাজার/ইউএসএস

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ই-পেপার
প্রথম পাতা
খবর
অর্থ-বাণিজ্য
শেয়ার বাজার
মতামত
বিশ্ব বাণিজ্য
ক্যারিয়ার
খেলার মাঠ
প্রযুক্তি বাজার
শিল্পাঞ্চল
পণ্যবাজার
সারাদেশ
শেষ পাতা