জানুয়ারি ৩০, ২০২৩

ইলিশে বাজার পরিপূর্ণ

নিষেধাজ্ঞা পার হওয়া মাত্রই বরিশাল নগরের পোর্টরোডস্থ একমাত্র বৃহত্তর মৎস অবতরণ কেন্দ্রটি জমজমাট হয়ে উঠেছে।

বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) সকাল ৯টার মধ্যে ইলিশে পরিপূর্ণ হয়ে গেছে বরিশাল নগরের এই পাইকারি বাজারটি।

ইলিশ ধরতে পারার আনন্দে ভোর থেকেই বরিশালের বিভিন্ন স্থান থেকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও জেলেরা পাইকারি বাজারটিতে ইলিশ নিয়ে আসতে শুরু করেন। ফলে ঘড়ির কাটা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যবসায়ীদের হাঁকডাক, শ্রমিকদের কর্মব্যস্ততায় রমরমা হয়ে ওঠে পাইকারি বাজারটিতে। এতদিন পর একসঙ্গে প্রচুর মাছ দেখতে পেয়ে বেজায় খুশি জেলে থেকে শুরু করে ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা।

পাইকার ব্যবসায়ীরা বলেন, ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমকে ঘিরে নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার সাথে সাথেই রাত জেলেরা মাছ শিকারের উদ্দেশ্যে নদী ও সাগরে নেমে পড়েন। যদিও সাগরের মাছ অবতরণ কেন্দ্রগুলোতে আসেনি, তবে নদীর ঝাকেঝাক ইলিশেই সকাল থেকে বাজার দখল করে ফেলেছে।

এক মৎস ব্যবসায়ী বলেন, একসঙ্গে প্রথমদিনে এতো মাছ ধরা পড়ায় খুশির জোয়ারে ভাসছে জেলে ও ব্যবসায়ীরা। এভাবে যদি ইলিশের আমদানি থাকে তাহলে সামনের দিনগুলো জেলে-ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের ভালো কাটবে। এর পাশাপাশি ক্ষতিও পুষিয়ে ওঠানো যাবে।

তবে অন্য ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, সাগর থেকে মাছ আসতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে। এভাবে নদী থেকে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়তে থাকলে এবং সাগরের মাছ আসতে শুরু করলে বাজারগুলো পুরো ইলিশে আরও পরিপূর্ণ হয়ে যাবে। ফলে ইলিশের দামও কমে যেতে পারে। এদিকে বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সকাল থেকেই নগরের মৎস অবতরণ কেন্দ্রটিতে ক্রেতা-বিক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বেলা বাড়ার ক্রমে পাইকারি এ বাজারটিতেও ইলিশের চাপ বাড়তে থাকে।

আরও পড়ুনঃ  টানা ছুটিতে চাঙা পর্যটন

ব্যবসায়ীরা জানায়, বৃহস্পতিবার ৬শ থেকে ৯শ গ্রামের ইলিশের পাইকারি দর মণপ্রতি ২৪ থেকে ২৫ হাজার টাকা, এককেজি ওজনের ইলিশের মণ ৩০ হাজার টাকা, ১২শ গ্রামের ওপরে ইলিশের মণ ৩৫ থেকে ৪০ হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ইলিশ কিনতে বাজারের ক্রেতাদের ভিড়ও দেখা যাচ্ছে অনেক। এদিকে বরিশাল জেলা মৎস অফিসের কর্মকর্তা জানান, নদীতে প্রচুর মাছ থাকার কারণে জেলেদের জালে প্রচুর মাছ ধরা পড়ছে। ফলে অল্প সময়ের মধ্যেই তারা মাছ ধরে বাজারে নিয়ে আসতে পারছে।

ইলিশের পেটে ডিম রয়েছে এমন অভিযোগে ইলিশের এই কর্মকর্তা জানান, ইলিশের পেটে সারাবছরই ডিম থাকে। শুধু প্রধান প্রজনন মৌসুমে ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ করা হয় ইলিশের পরিপূরণতার জন্য। বাকি সময় ইলিশের পেটে ডিম থাকা স্বাভাবিক ঘটনা।

আনন্দবাজার/শাহী

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ই-পেপার
প্রথম পাতা
খবর
অর্থ-বাণিজ্য
শেয়ার বাজার
মতামত
বিশ্ব বাণিজ্য
ক্যারিয়ার
খেলার মাঠ
প্রযুক্তি বাজার
শিল্পাঞ্চল
পণ্যবাজার
সারাদেশ
শেষ পাতা