জানুয়ারি ২৯, ২০২৩

আমনেও লোকসানের শঙ্কা

এবার আমন ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু গত বোরো মৌসুমের মত আমনেও  কাঙ্ক্ষিত দাম না পাওয়ার আশঙ্কায় ভুগছে কৃষকরা। বোরো উৎপাদন ভালো হলেও গত মৌসুমে ধানের কাঙ্ক্ষিত দাম পাননি কৃষকরা। শ্রমিক সংকটসহ নানা কারণে উল্টো লোকসান গুনতে হয়েছিল তাদের।  এমনকি মজুদ করে রাখা বোরো ধান নিয়ে বিপাকে পড়েছেন অনেক কৃষক। তবে কৃষি কর্মকর্তাদের দাবি করছে সরকারিভাবে ধান সংগ্রহ শুরু হলে বাজার চাঙ্গা হবে।

কৃষিনির্ভর জেলাগুলোর একটি হচ্ছে কুড়িগ্রাম।  এ জেলায় ধানচাষীর সংখ্যা প্রায় ৪ লাখ ৯৭ হাজার। গত বোরো মৌসুমে এ জেলায় ১ লাখ ১৪ হাজার ৪৮২ হেক্টর জমিতে ধান আবাদ হয় আর যা থেকে ধান উৎপাদন হয় ৪ লাখ ৬৩ হাজার ১৬৪ টন। সে সময়ে ৪৫০ টাকা মণ দরে ধান বিক্রি করে বিঘাপ্রতি প্রায় ২ হাজার টাকা লোকসানের কথা জানিয়েছিলেন কৃষকরা।

এবার আমন মৌসুমে জেলাটিতে ১ লাখ ২২ হাজার ১৬৯ হেক্টর জমিতে ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নেয়া হলেও তা বন্যার কারণে আবাদ ঠেকেছে ১ লাখ ১৯ হাজার ৩০৫ হেক্টরে। বর্তমানে বাজারে ধান বিক্রি হচ্ছে আগের মতো মণপ্রতি ৪৫০ টাকায়। কৃষকরা বলছে বাজারে আমন ধান আসা শুরু হলে দাম আরো কমে যেতে পারে। অথচ গত বছর এই জেলায় আমন বিক্রি হয়েছিল প্রতি মণ ৬৫০ টাকা।

একই অবস্থা জয়পুরহাটে। এইবার জেলাটিতে এবার ৭৫ হাজার ৭৭০ হেক্টর লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আমন আবাদ হয়েছে ৭৩ হাজার ১৬০ হেক্টর জমিতে। ২০১৮-১৯ আমন মৌসুমে জয়পুরহাটে ৭২ হাজার ১৩৫ হেক্টর জমিতে ধান আবাদ হয়েছিল। আর এ থেকে চাল উৎপাদন হয়েছিল ২ লাখ ১৫ হাজার ৫৮২ টন।

আরও পড়ুনঃ  আজ দেশের অর্ধেক অঞ্চলে ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা

শুধু আমন নয়  বেশি দাম পাওয়ার আশায় মজুদ রাখা বোরো ধানও ভাঁজ ফেলেছে কৃষকের কপালে। কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার কৃষক মো. রব্বানী মন্ডল বোরো মৌসুমে তিন একর জমিতে ধান আবাদ করেছিলেন। তিনি বলেন, বেশি দাম পাব  আশাকরে ৮০ মণ ধান মজুদ রেখেছিলাম। কারণ নতুন মৌসুম শুরুর আগে স্বাভাবিকভাবেই দাম বাড়ে যায়। কিন্তু এবার পাঁচ মাস ধরে ধান দামে প্রায় একি রয়েছে । এদিকে শুকিয়ে প্রতি মণে ধানের ওজন পাঁচ থেকে ১০ কেজি কমেগেছে। সব মিলিয়ে লোকসান থেকে বের হতে পারছি না আমরা।

জয়পুরহাট জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক সুধেন্দ্র নাথ রায় বলেন, এবার আমনের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। কিছু কিছু এলাকায় ধান কাটা শুরু হয়েছে। আশা রাখি, কৃষক ভালো দাম পাবেন।

আনন্দবাজার/শহক

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ই-পেপার
প্রথম পাতা
খবর
অর্থ-বাণিজ্য
শেয়ার বাজার
মতামত
বিশ্ব বাণিজ্য
ক্যারিয়ার
খেলার মাঠ
প্রযুক্তি বাজার
শিল্পাঞ্চল
পণ্যবাজার
সারাদেশ
শেষ পাতা